মিলন মেলায় মুখরিত রংপুরের ঈদগাহ্ ও মসজিদ

রংপুর প্রতিনিধি : মাদক, সন্ত্রাস, নাশকতা ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে দেশে শান্তি-সম্মৃদ্ধি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সম্প্রীতি কামনার মধ্য দিয়ে রংপুরে উদযাপিত হচ্ছে মুসলমানদের বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর।

আজ বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় উত্তরের বিভাগীয় নগরী রংপুরের কেন্দীয় ঈদগাহ্ ময়দান কালেক্টরেট ঈদগাহ্ পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈদের প্রধান এই জামাতে প্রায় ২০ হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নেয়।

নামাজ শুরুর পূর্বে রংপুরবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন-রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার কে.এম তারিকুল ইসলাম, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জেলা প্রশাসক এনামুল হাবিব।

এদিকে একই সময়ে রংপুর পুলিশ লাইন স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত ঈদের জামাতে অংশ নেন রংপুরের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। এখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা নামাজে অংশ নেন।

এছাড়াও সকাল আট থেকে দশটা পর্যন্ত রংপুর মহানগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের ৭৫টি ঈদগাহ্ মাঠসহ পাড়ামহল্লার মসজিদ-মাদ্রাসাগুলোতে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে ঈদের নামাজ আদায় শেষে রংপুরের মহানগরীসহ জেলার বিভিন্ন স্থানের ঈদগাহ্ মাঠ ও পাড়া-মহল্লার মসজিদগুলো মুখরিত হয় মিলন মেলায়। কাঁধে কাঁধ রেখে সব বয়সী মানুষ একে অপরের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

এবার রংপুর জেলার সবচেয়ে বৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে গঙ্গাচড়ার তালুক হাবু সাতান্ন জামাত ঈদগাহ্ ময়দানে। এখানে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও জাতীয় সংসদের বিরোধি দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি। এই ঈদগাহে প্রাায় চল্লিশ হাজার মুসল্লি একসাথে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

রংপুর জেলার প্রাায় ১২’শতাধিক ঈদগাহ্ মাঠে সকাল ৮টা থেকে দশটা পর্যন্ত সুবিধাজনক সময়ে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় বলে জানা গেছে।

বিএম/এসআর/এমআর