সুদীপ্ত হত্যা মামলা ফলোআপ
আওয়ামী লীগ নেতা মাসুম গ্রেফতারের পর রিমান্ডে

চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস হত্যা মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুমকে দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার (৫ আগস্ট) মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মোহাম্মদ নোমানের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দীন আহমেদ রিমান্ডের তথ্যটি নিশ্চিত করে বলেন, নগরীর সদরঘাট থানায় দায়ের করা ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস হত্যা মামলায় মাসুমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানিয়েছিলো মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা।

এসময় মাসুমের পক্ষের আইনজীবিরা মাসুমের জামিনের জন্য আবেদন জানিয়ে তার অসুস্থতার কথা তুলে ধরেন। জামিনের বিরোধীতা করেন বাদী পক্ষের আইনজীবিরা। আদালতে শুনানি শেষে বিচারক দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করলে মাসুমকে আদালত থেকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

এর আগে ৪ আগষ্ট রবিবার রাত সাড়ে ১০ টার সময় ঢাকা বনানীর কামাল আতার্তুক অ্যাভিনিউ-এর ব্লু-ওশান টাওয়ারের সামনে থেকে মাসুমকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি টিম।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (প্রসিকিউশন) মো. কামরুজ্জামান বলেন, নগর ছাত্রলীগের সহসম্পাদক সুদীপ্ত বিশ্বাসকে পিটিয়ে হত্যায় দায়ের করা একটি মামলায় গ্রেফতারকৃতদের জবানবন্ধিতে নির্দেশদাতা হিসেবে উঠে আসে লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুমের নাম।

রবিবার রাতে তাকে ঢাকা থেকে গ্রেফতারের পর সোমবার কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাকে চট্টগ্রাম আদালতে আনা হয়। এসময় আদালত প্রাঙ্গনে মাসুমের অসংখ্য অনুসারী ভিড় করে মিছিলের চেষ্টা করে। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মোহাম্মদ নোমানের আদালতে উভয় পক্ষের আইনজীবিদের যুক্তিতর্ক শেষে মাসুমকে দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

এর আগে লালখানবাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ৩১ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে দিদারুল আলম মাসুমের ব্যক্তিগত দু’টি অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল করা হয়। সিএমপির বিশেষ শাখার উপকমিশনার মো. আব্দুল ওয়ারিশ খান বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অস্ত্র দুটি জব্দের নির্দেশ দিলে শনিবার (৩ আগস্ট) দুপুরে খুলশী থানায় গিয়ে মাসুম নিজেই অস্ত্রগুলো জমা দিয়ে আসেন।

মাসুম বর্তমানে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। লালখান বাজারের চানমারি রোডের ইপিক কামারপার্ক ভবনের বাসিন্দা আবদুল হকের ছেলে মাসুম ১৯৯৭-৯৮ সালে সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

উল্লেখ্য : ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর সকালে নগরীর দক্ষিণ নালাপাড়ার বাসা থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয় নগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক সুদীপ্ত বিশ্বাসকে। এ ঘটনায় সুদীপ্তর বাবা মেঘনাথ বিশ্বাস বাবুল বাদী হয়ে সদরঘাট থানায় অজ্ঞাত পরিচয় সাত-আটজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার প্রেক্ষিতে গ্রেফতার মিজানুর রহমান নামে এক আসামি গত ১২ জুলাই আদালতে জবানবন্দি দেন। এতে তিনি সুদীপ্ত খুনের মূল পরিকল্পনাকারী ও নির্দেশদাতা ‘বড় ভাই’ হিসেবে দিদারুল আলম মাসুমের নাম উল্লেখ করেন।

হত্যাকান্ডের এক বছর পর বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত পিবিআইকে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দিলে ২০১৮ সালের নভেম্বর মাস থেকে তদন্ত শুরু করে পিবিআই।

বিএম/আরএস..