করতোয়ায় ডুবে বাবা-মেয়েসহ ভাতিজার মৃত্যু

বগুড়ার শেরপুরে করতোয়া নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে ২ শিশুকে নিয়ে নদী পারাপারের সময় পানিতে ডুবে একই পরিবারের ৩ জনের মৃত্যুর হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের চন্ডিদান গ্রামের করতোয়া নদীতে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত তিনজন হলেন- চন্দন সরকার (৩২), তার মেয়ে কিরণ সরকার (৫) ও ভাতিজা অপূর্ব সরকার (৬)। নিহতদের মধ্যে চন্দন সরকার ও কিরণ সরকার সম্পর্কে বাবা মেয়ে। আর নিহত অপূর্ব সরকার নিহত চন্দনের ভাতিজা ও উজ্জল সরকারের ছেলে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার (২৯ আগষ্ট) দুপুর ১টায় উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের চন্ডিদান গ্রামের করতোয়া নদীতে ব্রজেন সরকারের ছেলে চন্দন সরকার ও তার মেয়ে কিরণ সরকার এবং ভাতিজা অপূর্ব সরকারকে নিয়ে জাল দিয়ে মাছ ধরতে যান। মাছ ধরার একপর্যায়ে চন্ডিদান কালীতলা এলাকায় মেয়ে ও ভাতিজাকে কাঁধে নিয়ে করতোয়া নদী পারাপারের সময় চন্দনের হাত থেকে তার মেয়ে কিরণ সরকার পড়ে যায়। এসময় তাকে ধরতে গিয়ে তিনজনই পানিতে ডুবে যায়।

এ সময় প্রত্যক্ষদর্শী সঞ্জয় দাস তাদেরকে ডুবে যেতে দেখে ডাক-চিৎকার দিলে নদীর দু’পাড়ের লোকজন ছুটে এসে নদীর মধ্য থেকে চন্দন ও কিরণকে উদ্ধার করে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অপর শিশু উজ্জল গোদা নিখোঁজ রয়েছে।

শেরপুর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর স্টেশন অফিসার মোঃ রতন হোসেন জানান, ঘটনাস্থলে কিরণ সরকার এবং এর এক গজ দূরে চন্দন সরকারকে পাওয়া যায়। অপর শিশু অপূর্ব সরকারকে উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ডুবুরীদের খবর দেয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম জানান, ডুবে যাওয়া তিন জনের মধ্যে ২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

বিএম/এমআর