শ্বশুড়-শ্বাশুড়ীর যাবজ্জীবন,দেবর খালাস
খাগড়াছড়িতে স্ত্রী ও শিশু সন্তান হত্যায় ঘাতকর স্বামী মৃত্যুদন্ড

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : খাগড়াছড়িতে স্ত্রী মাজেদা বেগম (২২) ও ৬ মাসের শিশু সন্তান মো. রিদোয়ান আহাম্মদকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অপরাধে ঘাতক স্বামী ছাবের আলীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। একই অপরাধে নিহত মাজেদার শ্বশুড় ও শ্বাশুড়ীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন একই আদালত।

নিহত গৃহবধু মাজেদার পিতা মো. সাহাব উদ্দিনের দায়ের করা মামলায় বৃহস্পতিবার ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সকালে দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় খাগড়াছড়ি জেলা ও দায়রা জজ রেজা মো.আলমগীর হাসান’র বিচারীক আদালত এ রায় দেন।

২০১৬ সালের ২২ মার্চ রাত ৮টার দিকে খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার বড়পিলাক এলাকায় শ্বাশুর বাড়ীতে পরিকল্পিতভাবে স্ত্রী মাজেদা বেগম ও ৬ মাসের শিশুপুত্র মো. রিদোয়ান আহাম্মদকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। পরদিন ২৩ মার্চ হত্যার অভিযোগে গুইমারার থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

এতে হত্যার দায়ে স্বামী ছাবের আলী ও তার শ্বশুড় মো. মাহবুব আলী, শ্বাশুড়ি রেনু আরা বেগম এবং দেবর শাহজাহানকে আসামী করা হয়। দীর্ঘ ৩ বছর ৬ মাস পর ১৬ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় মামলার রায়ে নিহতের স্বামী ছাবের আলীকে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড দেওয়া হয়। একই রায়ে শ্বশুড় মো. মাহবুব আলী, শাশুড়ি রেনু আরা বেগমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড এবং অনাদায়ে আরো ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। এছাড়াও দেবর শাহজাহান এর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বেকসুর খালাস দেয় বিচারীক আদালত।

২০১৬ সালের ২৩ মার্চ গুইমারা থানার মামলা নং ০৩, পরবর্তীতে এস.টি মামলা নং ১২৯/১৬ (জি.আর ৮৬/১৬), ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট এ মামলার চার্জশীট দাখিল করা হয়। এ ঘটনার পূর্বেও গৃহবধু মাজেদাকে নির্যাতন করতো বলে অভিযোগ সূত্রে জানা যায়।

পিপি বিধান কানুনগো রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বাদী পক্ষ ন্যায় বিচার পেয়েছে উল্লেখ করে বলেন, ঘাতক স্বামী ছাবের আলীর মৃত্যুদণ্ড, শ্বশুড় মো. মাহবুব আলী, শাশুড়ি রেনু আরা বেগমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদানের তথ্যটি নিশ্চিত করেন।

বিএম/আলমগীর/আরএস..