এনসিএলে খেলবেন মুস্তাফিজ

খেলাধুলা ডেস্ক :আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে দেশের মাটিতে একমাত্র টেস্টের দলেই ছিলেন না মুস্তাফিজুর রহমান। দল ঘোষণার দিনে জাতীয় দলের নির্বাচকরা জানিয়েছিলেন, কন্ডিশনিং ক্যাম্পের শেষ দিকে হালকা ইনজুরিতে পড়েছিলেন তিনি। পিঠের সেই হালকা ব্যথায় খুব বেশি ভুগতে হয়নি বাঁহাতি এই পেসারকে। হোম কন্ডিশনে আফগানদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজটা এড়িয়ে গেলেও লংগার ভার্সন ক্রিকেটে ফিরছেন মুস্তাফিজ।

আগামী ১০ অক্টোবর শুরু হতে চলা জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) খুলনা বিভাগের হয়ে খেলবেন ২৪ বছর বয়সী এই পেসার। বিসিবির টুর্নামেন্ট কমিটি থেকে গতকাল এ তথ্য জানা গেছে। খুলনা বিভাগীয় দলে রাখা হয়েছে তাকে। খুলনা বিভাগীয় দলের কোচ ইমদাদুল বাশার রিপনও গতকাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এনসিএলে অন্তত দুই রাউন্ড খেলবেন কাটার মাস্টার খ্যাত এই পেসার। মূলত আগামী মাসে ভারত সফরের ভাবনাতেই এনসিএলে খেলবেন মুস্তাফিজ। ভারতে দুটি টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ দল। ১৪-১৮ নভেম্বর ইন্দোরে প্রথম টেস্ট ও ২২-২৬ নভেম্বর কলকাতায় দ্বিতীয় টেস্ট অনুষ্ঠিত হবে। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে পেস বোলিং আক্রমণে মুস্তাফিজকে রাখার চিন্তা করছেন নির্বাচকরা।

শ্রীলঙ্কা থেকে গতকাল জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক বলেছেন, জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অন্তত দুই রাউন্ড এনসিএল খেলতে হবে। টি-২০ দলে যারা সুযোগ পাবে তারা দুই রাউন্ড, টেস্ট দলের ক্রিকেটাররা তিন রাউন্ড খেলবে। ভারতে আমাদের দুটি টেস্ট রয়েছে। মুস্তাফিজকে তো টেস্ট খেলতে হবে। ভারত সফরেও সে যাবে। লাল বলের প্রস্তুতি এখানে হবে। ছুটি কাটিয়ে আজই সাতক্ষীরা থেকে ঢাকায় আসার কথা রয়েছে মুস্তাফিজের। বাঁহাতি এই পেসার সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন চলতি বছরের মার্চে নিউজিল্যান্ড সফরে। ওয়েলিংটনে একটি টেস্ট খেললেও তার আগের ম্যাচেই বিশ্রামে রাখা হয়েছিল তাকে। সম্প্রতি লংগার ভার্সনে অনেক সময় বিশ্রাম দেয়া হচ্ছে মুস্তাফিজকে। লাল বলের ক্রিকেটে তাই বেশ অনিয়মিত হয়ে পড়ছেন তিনি। তবে ভারত সফরে তাকে খেলানোর চিন্তা রয়েছে টিম ম্যানেজমেন্টের।

খুলনা বিভাগের কোচ ইমদাদুল বাশার রিপন গতকাল বলেছেন, জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের বিপ টেস্ট লাগছে না। তাই মুস্তাফিজকেও দিতে হয়নি। যতটুকু জানি, পেস বোলারদের মধ্যে মুস্তাফিজ, আল-আমিন থাকছে খুলনা দলে। ওরা খেলবে। আগামী ৬ অক্টোবর আমাদের অনুশীলন শুরু হতে পারে। এবার এনসিএলে একটি ম্যাচ খেলতে পারেন মাশরাফি বিন মুর্তজাও। খুলনার কোচ বলেছেন, আমি নিশ্চিত নই। তবে শুনেছি মাশরাফি একটা ম্যাচ খেলতে পারে। প্রথম রাউন্ড যে নয়, তা স্পষ্ট। ও তো প্রস্তুত হয়েই আসবে, যখনই খেলবে।

টেস্ট খেলা পেসারদের বেশি বেশি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলা উচিত বলে মনে করেন আবু হায়দার রনি। গতকাল মিরপুর স্টেডিয়ামের বিসিবি একাডেমি অনুশীলন শেষে বাঁহাতি এই পেসার বলেছেন, ‘এখানে আমাদেরও ঘাটতি রয়েছে। আমরা যারা পেস বোলার আছি আমরা হয়তো তেমন গতির বোলার না যে আমরা ১৪০ প্লাস গতিতে বোলিং করি। দেখা যায় আমরা যারা আছি সবাই ১৩০ কিংবা ১৩৫ এমন গতিতে বোলিং করি। আমাদের কাজ হবে যত বেশি ম্যাচ খেলা যায় চার দিনের। আমরা যারা টেস্ট নিয়ে চিন্তা করি আমাদের উচিত বেশি বেশি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলা।’