সংসদ নির্বাচনে নেতাকর্মীদের অবদান আগামীতে কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ভুমিকা রাখবে

    ????????????????????????????????????

    চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরবর্তী কার্যনির্বাহী কমিটির প্রথম সভায় সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নগরীর ৩টি আসনসহ সংশ্লিষ্ট আরো ৩টি আসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেওয়ার জন্য তিনি নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ জানান।

    তিনি বলেন, সাংগঠনিক ঐক্য ও শৃঙ্খলা রক্ষায় নেতাকর্মীরা যে অবদান রেখেছে তা আগামীদিন কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সাংগঠনিক ভিত্তিকে সুদৃঢ় করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা বেগবান করতে দলীয় সংহতি ও ঐক্য প্রতিষ্ঠা নেতাকর্মীদের পারস্পরিক দূরত্ব ঘুচিয়ে নিতে হবে।

    আজ শনিবার বিকেলে নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট হলে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সাংগঠনিক নির্দেশনামূলক বক্তব্যে তিনি একথাগুলো বলেন।

    এ সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, প্রশাসন জাতীয় নির্বাচনকে সফল ও অর্থবহ করার জন্য যে অবদান রেখেছেন তার জন্য জাতি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবে। এই নির্বাচনের মধ্যদিয়ে বাঙালি জাতিসত্তার অস্তিত্ব রক্ষায় একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ আমরা মোকাবেলা করতে পেরেছি।

    তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনা থাকলে বাংলাদেশ থাকবে। তাই যুগ জনতাকে তাঁর পাশে থাকতে হবে। সভায় চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে নতুন মন্ত্রীসভায় ৪ জনকে অন্তর্ভুক্ত করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়। এ লক্ষে আগামী ২৯ জানুয়ারি ঐতিহাসিক লালদিঘী ময়দানে ৪ জন মন্ত্রী সহ নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্যদের সংবর্ধিত করা হবে।

    এ ছাড়া আগামী ২৪ জানুয়ারি’৮৮ চট্টগ্রাম গণহত্যা দিবস উপলক্ষে সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম আদালত ভবনের প্রবেশমুখে স্মৃতি স্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনা সভা, ২৫ জানুয়ারি বর্ধিত সভা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং ৩১ জানুয়ারি লালদিঘী ময়দানে বিকেল ৩টায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রী সদ্য প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি’র স্মরণসভা আয়োজনের কর্মসূচি গৃহীত হয়।

    এ স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি সহ কেন্দ্রীয় জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ।

    এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে ওয়ার্ড, থানার আওতাধীন প্রতিটি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনকে সাংগঠনিক পর্যায়ের নেতৃত্বকে প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশনা দেয়া হয়। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এড.সুনীল কুমার সরকার, এড. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, কোষাধ্যক্ষ আলহাজ্ব আবদুচ ছালাম, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুক, হাসান মাহমুদ শমসের, এড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, হাজী মোহাম্মদ হোসেন, হাজী জহুর আহমেদ, দেবাশীষ গুহ বুলবুল, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, আবদুল আহাদ, জালাল উদ্দিন ইকবাল, আবু তাহের, ডা: ফয়সল ইকবাল চৌধুরী, শহিদুল আলম, জহর লাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য এম.এ জাফর, হাজী মো: ইয়াকুব, মো: আবুল মনসুর, গাজী শফিউল আজিম, কামরুল হাসান বুলু, নুরুল আবছার মিয়া, ইঞ্জিনিয়ার বিজয় কিষান চৌধুরী, সৈয়দ আমিনুল হক, গোলাম মো: চৌধুরী, শেখ শহিদুল আনোয়ার, এড. কামাল উদ্দিন আহমেদ, বখতিয়ার উদ্দিন খান, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, অমল মিত্র, মোহব্বত আলী খান, আবদুল লতিফ টিপু, রোটারিয়ান ইলিয়াছ, হাজী বেলাল আহমদ প্রমুখ।

    সভায় সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য জালাল উদ্দিন ইকবালের অনুজ মনির উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারবর্গের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।

    বিএম/রাজীব…