স্বামী হত্যার সুষ্ঠ বিচার দাবী করে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

    চট্টগ্রাম মেইল : ফটিকছড়ির ভুজপুরে  “শিমুল মহাজন” হত্যাকারীদের বিচার দাবী ও মিথ্যা মামলা দিয়ে নিরীহ গ্রামবাসীকে হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন শিমুলের স্ত্রী প্রিয়াংকা রানী দে।

    দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবী জানান। এসময় তিনি বলেন, গত ১৬ ফেব্রুয়ারী তাঁর শাশুরী ,ভাশুর ও চাচা শ্বশুর মিলে শিমুল মহাজনকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করে। এরপর উল্টো প্রিয়াংকার পিতাসহ গ্রামের লোকজনের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে।

    তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত পূর্বক দোষীদের গ্রেফতার এবং  গ্রামবাসির নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান।

    ফটিকছড়ি স্বামী শিমুল হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবী করে স্ত্রী প্রিয়াংকার সংবাদ সম্মেলন

    সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে প্রিয়াংকা বলেন, সমাজে বংশ মর্যাদার আড়ালে বসবাস করা একদল খুনি তাঁর কাছ থেকে তাঁর স্বামীকে পরিকল্পিতভাবে কেড়ে নিয়েছে । এসময় প্রিয়ংকার মা শিখা রানী দে, লায়ন স্বপন মল্লিক, মিহির কুমার মহাজন, পরিতোষ কান্তি দে, প্রদীপ কান্তি দে, সমীর কান্তি দে প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

    উপজেলার দাঁতমারা  ইউনিয়নের কার্তিকপুর গ্রামে পাশাপাশি বাড়ী হওয়ার সুবাধে ২০১০ সালে শিমুলের সাথে প্রিয়াংকার সম্পর্ক সুত্র ধরে ২০১২ সালে কোর্টে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন দুজন। কিন্তু শিমুলের পরিবার এ বিয়ে মেনে নেয়নি। তারা শিমুলরা “মহাজন” আর প্রিয়াংকাদের পরিবার “দে” এ স্ট্যাটাসের অজুহাতে শিমুলের মা শাশুরী চিনু মহাজন কোনভাবেই ছেলের স্ত্রী হিসেবে প্রিয়াংকাকে মেনে নিতে রাজি হননি। সামাজিক ভাবে স্ত্রী’র মর্যাদা পেতে প্রিয়াংকা নিজেই আপ্রাণ চেষ্টা চালায়।

    গত ১৫ ফেব্রুয়ারী তাদের দুজনকে স্বামী স্ত্রী হিসেবে সামাজিক মর্যাদা দেওয়ার জন্য পারিবারিকভাবে একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এতে পরের দিন ১৬ ফেব্রুয়ারী সনাতন ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী দুজনের বিয়ের রেজিস্ট্রি হওয়ার কথা ছিল। ১৬ ফ্রেবুয়ারী ভুজপুর থানার ওসি, এলাকার পুজা কমিটির সভাপতি বাবুল কান্তিকে দায়িত্ব দেন যেন বিবাহ
    রেজিস্ট্রি করানোসহ এ সংক্রান্ত কাজ গুলো তার দায়িত্বে সম্পন্ন করেন। উভয়
    পক্ষ থেকে মুচলেখা নিয়ে একটি আপোষ নামাও লেখা হয়। ১৬ ফ্রেবুয়ারী সন্ধ্যায়
    পঞ্জিকামতে লগ্ন দেখে সন্ধ্যা ৭টায় বাড়ীর পাশে মন্দিরে বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন করার কথা।

    কিন্তু এরমধ্যেই থানায় পুলিশের সামনে প্রিয়াংকার বাবা স্বামী শিমুলের শশুড়কে অপমান, বাড়ীতে এবং থানায় দফায় দফায় নিজ পরিবারের সদস্য কর্তৃক শিমুল অপমানিত হয়। এসব অপমান সইতে না পেরে শিমুল নিজের ফেসবুকে লাইভ দিয়ে বলেন, আমি নিজের জীবন নিজে আত্মাহুতি দেব। আমি ফাঁসিতে ঝুলে মরে যাব। এর ঠিক কিছুক্ষন পর মন্দিরের পাশে গিতাস্কুলের পিছনে ঘরের চালের কেঁচির সাথে ফাঁসিতে ঝুলানো অবস্থায় শিমুলের মরদেহ পাওয়া যায়।

    পুলিশ আসার অপেক্ষা না করে নিজেরাই লাশ নামিয়ে থানায় নিয়ে যায়। এর পর
    উল্টো তারা মিথ্যা আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় প্রিয়াংকার পিতাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে। এ ছাড়া সমাজের বেশ কিছু গন্যমান্য ব্যক্তির নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। তাদের বাড়ী ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুরও করছে । তিনি তাঁর স্বামীর মৃত্যুর ঘটনা সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের গ্রেফতার পূর্বক যথাযথ বিচারের দাবী জানান।

    বিএম/রাজীব…