মহাসড়ক নয় এবার রেলপথ উন্নয়নে নজর দিতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ

    জাতীয় মেইল : নতুন করে কোন মহাসড়ক নয়, বরং রেলপথের উন্নয়নে নজর দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশনার তথ্য জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

    তিনি বলেন, মঙ্গলবার (৫ মার্চ) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশনা দেন।

    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নতুন করে মহাসড়কের প্রয়োজন নেই। আমাদের দেশে পর্যাপ্ত মহাসড়ক রয়েছে, এগুলো শুধু সংস্থার-মেরামত করতে হবে। এখন রেলওয়ের দিনে নজর দিতে হবে, পাশাপাশি নৌপথের দিকেও নজর দিতে হবে।

    শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজকের একনেক সভায় ৬ হাজার ২৭৬ কোটি টাকার ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এর সবগুলোই নতুন প্রকল্প।

    যার মধ্যে রয়েছে, আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জাপানিজ অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ, ৮৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা দক্ষিণের ৮টি এলাকার উন্নয়ন ও আধুনিকায়ন, প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ১শ’ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩৪০ টি সেতু নির্মাণ প্রকল্প।

    একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান মূল্যস্ফীতির হালনাগাদ পরিস্থিতি তুলে ধরেন। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ হিসেবে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী
    চলতি বছরের দ্বিতীয় মাসে মজুরির হার বেড়ে যাওয়ার কারণে মূল্যস্ফীতি একটু বেড়েছে। গত বছর ফেব্রয়ারি মাসে মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ, যা ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ হয়েছে। গত জানুয়ারিতে এ হার ছিল ৫ দশমিক ৪২ শতাংশ।

    এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘ফেব্রয়ারি ২০১৯ সালে মূল্যস্ফীতির হার হয়েছে ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ। তবে এ মাসেই মজুরি সূচক ৬ দশমিক ২১ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ। এতে মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে গেলেও এ মাসের বেতন বেড়ে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতির তীব্রতা কিছুটা নমনীয় হবে।

    একনেকের বিকল্প চেয়ারম্যান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনসহ সংশ্লিষ্টরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

    বিএম/রাজীব…