পটিয়ায় জাল ভোট দিতে গিয়ে গণপিটুনীর শিকার যুবক : চমেকে প্রেরণ

পটিয়া প্রতিনিধি : পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পটিয়া উপজেলার ১১৩টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হয়েছে। তবে বড় কোন ধরনের অঘটন ছাড়া এসব কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে টানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে।

পটিয়া পৌরসদরের আব্দুর রহমান সরকারী বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল ১১টার সময় জাল ভোট দিতে গিয়ে গণপিটুনীর শিকার হয়েছে মো. সেলিম নামের এক যুবক। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে গুরুতর আহত যুবক সেলিমকে উদ্ধার করে প্রথমে পটিয়া হাসপাতালে এবং পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এছাড়া উপজেলার কেলিশহর ইউনিয়নের পূর্ব রতনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়ার সময় এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ চার ‘ভুয়া ভোটারকে’ আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আজ রবিবার সকাল ১০টার দিকে তাদের আটক করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুদ রানা জানান, ওই চার জনকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে হস্থান্তর করা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন আবির হোসেন, রুবেল আলম, বোরহান উদ্দিন এবং এসএসসি পরীক্ষার্থী মো. ইমরান।

এদিকে পটিয়া উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড চরকানাই বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে জোর পূর্বক জাল ভোটের অভিযোগ এনে পুলিশ এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেন্দ্রটি স্থগিত করে দেন। তাছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেন্দ্র পরিদর্শন করার সময় নির্বাচন কমিশনের অনুমতি ব্যাতিত যানবাহন চলাচল করায় সিএনজি (অটোরিক্সা) ও মোটর সাইলের সংযোগ তার ছিড়ে দিয়ে শাস্তি দেন।

সরেজমিনে বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শণে গিয়ে দেখা যায়, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়েও কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ভোটারের উপস্থিতি ছিল তুলনামুলক কম। তবে যারা কেন্দ্রে ভোট দিতে এসেছেন তারা নিজেদের ভোট নিজেরা দিতে পেরে খুশি হয়েছেন।

বিএম/সঞ্জয় সেন/রাজীব…