বাজারে পাওয়া যাবে ক্রিকেট দলের জার্সি

স্পোর্টস ডেস্ক : এখন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ দলের অফিসিয়াল জার্সি পাওয়া যাবে বাজারে। বাংলাদেশ দলের জার্সি বিক্রির দায়িত্ব পেয়েছে ‘স্পোর্টস এন্ড স্পোর্টজ’ প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কোন প্রতিষ্ঠান বিসিবির লোগো দিয়ে জার্সি বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানিয়েছে।

অন্যান্য দেশগুলোতে ক্রিকেট ভক্তরা খুব সহজেই নিজেদের দলের অফিসিয়াল জার্সি পেত। তবে এই ধরণের নিয়ম আগে ছিল না বাংলাদেশে। ভক্তদের জার্তি অফিসিয়াল জার্সি পেতে অনেক বেগ পোহাতে হতো। তবে এইবার এই বিষয় নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এখন থেকে খুব সহজেই প্রিয় লাল-সবুজের জার্সি কিনতে পারবে বাংলাদেশের ভক্তরা।

বাংলাদেশের জার্সি বিক্রির জন্য ‘স্পোর্টস এন্ড স্পোর্টজ’ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আগামী এক বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে বিসিবি। সোমবার সংবাদ সম্মেলনে এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে জার্সির দাম কেমন পড়বে সেটি এখনো নিশ্চিত করেনি। বিশ্বকাপের জার্সি দিয়েই চালু হবে এটি জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী মেহতাব উদ্দিন আনোয়ার।

“কয়েক সপ্তাহের মধ্যে বিশ্বকাপের জার্সি উন্মোচন হবে। এরপর বাংলাদেশের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের আউটলেটের মাধ্যমে ক্রিকেটপ্রেমীরা জার্সি কেনার সুযোগ পাবেন। আমরা এখনো মূল্য নির্ধারণ করিনি। তবে জার্সির মূল্য সবার ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই থাকবে।”

আগে বেশি দাম দিয়ে জার্সি কিনতে হতো ভক্তদের। তবে এখন থেকে এসব বিষয়ে নজর রাখেব বিসিবি। বাজারে যদি ‘স্পোর্টস এন্ড স্পোর্টজ’ এর বাইরে কেউ জার্সি তৈরি করে তাহলে তাদের বিপক্ষে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন। এছাড়াও টাইগারদের জার্সি শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বকাপ চলাকালীন ম্যাচের ভেন্যুতেও জার্সি পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন নিজামউদ্দিন।

“কেউ যেন নকল জার্সি না বানাতে পারে, সেই দিকে নজরদারির ব্যবস্থা থাকবে। কেউ এমন কাজ করলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা আইসিসির সঙ্গে কথা বার্তা বলছি। বিশ্বকাপ চলাকালে ভেন্যুগুলোতে জার্সি বিক্রির উদ্যোগ নিবো।”

বিএম/রনী/রাজীব