জানালা দিয়ে বাঁচার আকুতি! উদ্ধারে প্রধান বাধা ধোঁয়া

বিএম ডেস্ক : রাজধানীর বনানীর ১৭ নম্বর রোডে কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ে এফআর টাওয়ারে লাগা ভয়াবহ আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে পুরো ভবনে। এতে ১৭তম বেসরকারি বাণিজ্যিক ভবনটিকে আটকা পড়েছেন বহু লোক।

আগুন লাগার পর থেকে সর্বশেষ ফায়ার সার্ভিসের ২১টি ইউনিট ঘটনাস্থলে আগুন নেভানোর কাজ করছে। যোগ দিয়েছে বিমান, নৌ ও সেনাবাহিনীর উদ্ধারকারী টিম। বিমান ও সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার উদ্ধার তৎপরতায় যোগ দিয়েছে।

আগুন ভবনে ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্কিত লোকজন জানালার কাঁচ ভেঙে হাত নাড়িয়ে, গায়ের জামা নীচে ফেলে বাঁচার আকুতি জানাচ্ছেন। মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তাদের অনেককেই চিৎকার করতে শোনা যাচ্ছে। ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। আবার অনেকেই রশি কিংবা তার বেয়ে নামার চেষ্টা করছেন।

উদ্ধারকাজে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে যোগ দিয়েছে নৌবাহিনীর ফায়ার টিম এবং বিমানবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার।

এ প্রতিবেদন লিখা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের ২১টি ইউনিট সেখানে কাজ করছে। ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানিয়েছে, পানির সংকটে আগুন নেভাতে বেগ পেতে হচ্ছে। এ মুহূর্তে গোটা ভবনটি ধোঁয়ার কুণ্ডলীতে ঢাকা পড়েছে।

আগুন লাগার কিছুক্ষণ পর থেকেই আগুনে পুড়ে ভবনের গ্লাসগুলো খসে পড়ছিল। আশপাশের লোকজন জড়ো হয়েছেন ভবনের আশপাশে। বনানী সড়ক বন্ধ রয়েছে। চারদিকে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বিশেষত ভবনের ৯, ১০, ১১, ১২, ১৩ তলাগুলো থেকেই ধোঁয়া বেশি বের হচ্ছে। আগুন নিয়ন্ত্রণের সর্বোচ্চ চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বাইরে থেকে পানি ও বালি ছুড়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে স্থানীয়রাও।

এদিকে ধোঁয়ার আশপাশের এলাকা প্রায় অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। আশেপাশের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মানুষের ভিড় সামলানোর চেষ্টা করছেন।

আটকাপড়াদের একজন ভেতরের ভিডিও করে পাঠিয়েছেন। তাতে দেখা গেছে, ‘ওই রুমে অনেকে আটকা পড়েছেন। তাদের প্রচণ্ড ধোয়ায় শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। তারা আহ্বান করছেন যে তাদের উদ্ধার সিঁড়ি পাঠানো হয়। তা না হলে অল্প কিছুক্ষণে মধ্যে তারা হয়তো মারা যাবেন।’

আলমগীর হোসেন নামে নেমে আসা একজন বলেন, ‘১৩তলা থেকে আমি পাইপ বেয়ে নেমেছি। মনে হচ্ছিল আজই হয়ত মারা যাব। আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছেন। তবে অনেক মানুষ এখনো নামতে পারেননি।’

ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এনায়েত হোসেন বলেছেন, ‘আমরা অনেক সীমাবদ্ধতা নিয়েও আগুন নিয়ন্ত্রণ ও ভেতরে আটকপড়াদের বাঁচানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। সেনাবাহিনীর ফায়ার ইউনিট, নৌবাহিনীর ফায়ার ইউনিট ও বিমান বাহিনীর ফায়ার ইউনিট আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে। হেলিকপ্টারে এয়ার লিফটের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ভেতরে হতাহতের বিষয়টি এখনও জানতে পারছি না।’

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১টার দিকে রাজধানীর বনানীর বহুতল এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ আগুন লাগে। আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে যায়। সবশেষ ফায়ার সার্ভিসের ২১টি ইউনিট আগুন নেভাতে কাজ করছে।

বিএম/রনী/রাজীব