পাহাড়ে আগুনে পুড়ছে সংরক্ষিত বনাঞ্চল

বিএম ডেস্ক : পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন পাহাড়ের সংরক্ষিত বনাঞ্চলে ইদানিং কে বা কারা আগুন লাগিয়ে দিচ্ছে। বর্তমানে প্রচন্ড দাবদাহে পাহাড়ের গাছপালা এমনিতেই শুকিয়ে আছে। গাছের নিচে অসংখ্য লতা পাড়াও শুকিয়ে আছে। এই অবস্থায় সামান্য আগুনের ছোঁয়া পেলেই লক লক করে আগুন সমগ্র পাহাড়ে ছড়িয়ে পড়ে।

এক জায়গায় আগুন লাগলে মুহুর্তে তা এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ে ছড়িয়ে পড়ছে। এই আগুনের ফলে পাহাড়ের মূল্যবান গাছপালার মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। পাশাপাশি বিভিন্ন গাছপালা এবং লতা গুল্মও পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে।

সম্প্রতি সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে রাঙ্গামাটি জেলার রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা, কাউখালী উপজেলা, কাপ্তাই উপজেলা, বিলাইছড়ি উপজেলা, বাঘাইছড়ি উপজেলাসহ পাহাড়ের প্রায় প্রতিটি উপজেলায় পাহাড়ে আগুন লাগানো হচ্ছে।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন কাপ্তাই শাখার সভাপতি খোরশেদুল আলম কাদেরী বলেন, আগুনে শুধু যে গাছপালা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তা নয় বনের পশু পাখি এবং জীব জন্তুর জীবনও বিপন্ন হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ না পেলে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বন বিভাগের রেঞ্জ অফিসার আবদুল মালেক বলেন, প্রাকৃতিক নিয়ম অনুযায়ী পাহাড়ে অবস্থিত গাছপালার পাতা ঝরে পড়ার কথা। এসব লতাপাতা বন জঙ্গলে বিভিন্ন গাছের গোড়ায় শুকিয়ে থাকে। বৃষ্টি হলে এই লতা পাতা গুলোই জৈব সার হিসেবে গাছের খাদ্য যোগাবে। কিন্তু কে বা কারা এই শুকনো লতাপাতায় আগুন ধরিয়ে দেয় তা আমরা বুঝতে পারছিনা। এই সময় পাহাড়ে আগুন না লাগানোর জন্য আমরা সবাইকে বার বার অনুরোধ করে আসছি। মাঝে মাঝে দমকল বাহিনীর সাহায্যে পাহাড়ে পানি ছিটানো হচ্ছে বলেও তিনি জানান। প্রাকৃতিক পরিবেশ বজায় রাখার সুবিধার্থে পাহাড়ে যাতে কোন ভাবেই আগুন না লাগে সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার জন্য তিনি সর্বস্তরের জনগণের প্রতি আহবান জানান।

বিএম/রনী/রাজীব