সুবর্ণচরে ছয় সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের আলামত মিলেছে

বিএম ডেস্ক : ফের নোয়াখালীর সুবর্ণচরে চরজুবলী ইউনিয়নের উত্তর বাগ্গায় স্বামীকে আটকে রেখে ছয় সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের আলামত মিলেছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গতকাল মঙ্গলবার মেডিকেল অফিসার শাহানারা আক্তার লিপি’র নেতৃত্বে একটি মেডিকেল টিম নির্যাতিতা নারীর শারীরিক পরীক্ষা শেষ করেন। পরে আজ দুপুরের দিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদনটি তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. খলিল উল্যাহর কাছে জমা দিলে তিনি তা নোয়াখালী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পাঠান।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আন্তরিকতা ও অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে খুব দ্রুতই নির্যাতিতার স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে।’

গত রোববার রাতে চরজব্বার বাজার থেকে ভুক্তভোগী নারী তার স্বামীর মোটরসাইকেলে চড়ে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় ইউসুফ মাঝি ও বেচু মাঝির নেতৃত্বে ১০ থেকে ১২ জন তাদের গতিরোধ করে মারধর করেন। পরে স্বামীকে আটকে রেখে ওই নারীকে পাশের কলা বাগানে নিয়ে পালাক্রমে গণধর্ষণ করা হয়।

প্রসঙ্গত, ৩১ মার্চ রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ভিকটিম ও তার স্বামী মোটরসাইকেলে করে নিজেদের বাড়িতে ফিরছিলেন। পথে উত্তর বাগ্যা এলাকায় তালা প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থক ইউসুফ মাঝির নেতৃত্বে ১০/১২জন তাদের গতিরোধ করে মারধর করে। এসময় বেচু মাঝি, বজলু ও আবুল বাসার ওই নারীর স্বামীকে আটকে রেখে তাকে পার্শ্ববর্তী রুহুল আমিনের মৎস্য খামারে নিয়ে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে তার স্বামীর চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে এলে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় রাতেই ওই নারীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরের দিন নির্যাতিতার স্বামী আট জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও চার জনকে আসামী করে চরজব্বার থানায় মামলা দায়ের করেন।

বিএম/রনী/রাজীব