এবি’র এলআরবিতে নতুন ভোকাল বালাম

বিনোদন ডেস্ক : বাংলাদেশের নন্দিত ব্যান্ড এলআরবি। ১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল স্বপন, জয় ও এস আই টুটুলকে নিয়ে আইয়ুব বাচ্চু প্রতিষ্ঠা করেন এই ব্যান্ড। আজ বাচ্চু নেই কিন্তু প্রতিষ্ঠার ২৮ বছর পেরিয়ে ২৯-এ পা রাখলো ব্যান্ডটি।

গেল ২৮ বছরে আকাশছুঁই জনপ্রিয়তা পাওয়া ব্যান্ডটি গত ১৮ অক্টোবর দলনেতার হঠাৎ প্রস্থানে প্রায় স্থবির হয়ে পড়ে। ভোকাল সংকটে থাকা ব্যান্ডটিতে এবার প্রধান ভোকাল ও গিটার বাদক হিসেবে যুক্ত হলেন বালাম।

এলআরবি’র জন্মদিন এবং বালামের অংশগ্রহণ মিলিয়ে আজ (৫ এপ্রিল) বিকালে রাজধানীর থার্টি থ্রি ক্যাফেতে একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছে। ‘দ্য লিগেসি কনটিনিউস’ শিরোনামের এই অনুষ্ঠানে এলআরবি সদস্যদের কণ্ঠে ঘুরেফিরে উঠে আসে আইয়ুব বাচ্চুর কথা। যাকে ছাড়া এবারই প্রথম ব্যান্ডটির জন্মদিন পালিত হলো।

এবি-বিহীন এলআরবি’র নতুন যাত্রা শ্রোতাদের ভালোবাসায় সিক্ত হবে, এটাই প্রত্যাশা দলের সদস্যদের।

অনুষ্ঠানে এলআরবি’র পক্ষ থেকে সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার শামীম আহমেদ সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। যারা আইয়ুব বাচ্চুর অবর্তমানে দলটির সদস্যদের এগিয়ে যেতে সাহস জুগিয়েছেন।

এলআরবি’র বর্তমান লাইনআপ দাঁড়ালো, বেজ গিটার- স্বপন, গিটার- মাসুদ, ভোকাল ও গিটার- বালাম, ড্রামস-এ রোমেল এবং সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার- শামীম আহমেদ।

বালাম ওয়ারফেজ ব্যান্ডের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা নিয়ে একক ক্যারিয়ারে ব্যস্ত ছিলেন শেষের কয়েক বছর।

মাসুদ এলআরবি’র সঙ্গে বালামের অংশগ্রহণের বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, ‘আমরা বসের (আইয়ুব বাচ্চু) লিগেসি নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। বসের অবর্তমানে পার্থ দা, বাপ্পা দা ছাড়াও অনেকের সাপোর্ট পেয়েছি। আমাদের প্রথম কনসার্ট শুরু করেছি বালামকে নিয়ে। এরপর আরও অনেকেই আমাদের সঙ্গে ছিলেন। মানে আমরা আসলে বসে ছিলাম না। সবার সহযোগিতা নিয়ে আমরা আসলে এগিয়ে যেতে চেয়েছি। তবে এই পর্যায়ে এসে, আমরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে- এই যুদ্ধে আমাদের আরেকজন বন্ধু দরকার। যে গাইবে আবার গিটারও বাজাবে। বস নিজেও আমার সেই বন্ধুকে প্রচণ্ড স্নেহ করতেন। নাটকীয়তা না করে বলেই ফেলি, আমরা এই যুদ্ধে সঙ্গে পেয়েছি বালামকে। ধন্যবাদ বালাম।’

এলআরবি’র প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চু

এদিকে বালাম বলেন, ‘এটা অনেক বড় দায়িত্ব। যে ব্যান্ডের গান শুনে বড় হয়েছি, যার গিটার বাজানো দেখে মিউজিকে এসেছি- আজ সেই মানুষটা আমাদের মাঝে নেই। উল্টো তার গাওয়া গান আমাকে গাইতে হবে, বাজাতে হবে- তারই ব্যান্ডের হয়ে। এটা একদিকে অনেক বড় পাওয়া, আবার অনেক চাপও। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন, যেন বাচ্চু ভাইয়ের সৃষ্টিকে ধারণ করতে পারি কণ্ঠে ও গিটারে।’

প্রসঙ্গত, গত বছর ১৬ অক্টোবর রাতে রংপুরের একটি কনসার্টে শেষ অংশ নেন আইয়ুব বাচ্চু ও তার দল। ১৭ অক্টোবর ঢাকায় ফেরেন তিনি। ১৮ অক্টোবর সকালে নিজ বাসায় হার্ট অ্যাটাক করে মৃত্যুবরণ করেন এই কিংবদন্তি মিউজিশিয়ান।

দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যান্ড এলআরবি’র দলনেতা আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একাধারে গায়ক, গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। গিটারের জাদুকর হিসেবে আলাদা সুনাম ছিল তার। ভক্তদের কাছে তিনি ‘এবি’ নামেও পরিচিত ছিলেন।

বিএম/রনী/রাজীব