কর্ণফুলি নদীতে নিখোঁজ নির্মাণ শ্রমিক হাবিবের মরদেহ উদ্ধার

কর্ণফুলি নদীতে নিঁখোজ লাশ উদ্ধার

চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রামের কর্ণফুলি নদীর ডাঙ্গারচর ঘাট থেকে সল্টগোলা ঘাটে নৌকাযোগে পার হতে গিয়ে ভাটার টানে ভেসে যাওয়া সে নির্মাণ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে।

নিখোঁজের তিন দিন পর বুধবার রাতে নির্মাণ শ্রমিক হাবিবুর রহমানের মরদেহটি উদ্ধার করার তথ্য নিশ্চিত করেছে ইপিজেড থানা পুলিশ।

বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১১টার দিকে কর্ণফুলী নদীর নেভাল বার্থ-১ এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করে নৌ বাহিনী। নিহত হাবিবুর রহমান উপজেলার জুলধা পাওয়ার প্ল্যান্টে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করতেন পাশাপাশি সাদিয়া টেকনো বিল্ডার্স লিমিটেডের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিল। হাবিব শেরপুর জেলার শ্রীবাদী এলাকার আবদুল করিমের ছেলে।

ইপিজেড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল হুদা কর্ণফুলি নদীতে নিখোঁজ হাবিবুর রহমানের লাশ উ্দ্ধারের তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বুধবার রাত পৌণে ১১টার সময় নিখোঁজ হাবিবের লাশ উদ্ধার করে নৌ বাহিনী মরদেহটি আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে।আইনী প্রক্রিয়া শেষে হাবিবের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানালেন ওসি।

গত ৭ এপ্রিল ১৩ জন যাত্রী নিয়ে ডাঙ্গারচর ঘাট থেকে কর্ণফুলি নদী পথে সল্টগোলা ঘাটে যাচ্ছিল যাত্রীবাহি একটি নৌকা। মাঝ পথে ভাটার টানে নৌকাটি দুরে ভেসে যেতে দেখে আতঙ্কিত হয়ে বেশ কয়েকজন যাত্রী নদীতে লাফ দেন।

হাবিবুর রহমান

স্থানীয় মাঝি ও আশে পাশের নাবিকদের সহযোগীতায় তাদের কয়েকজনকে উদ্ধার করা হলেও নিখোঁজ হয় ৩ যাত্রী।

দুদিন পর ৯ এপ্রিল মঙ্গলবার সকালে নৌ বাহিনীর বিএনএফডি সুন্দরবন ডক ঘাট এলাকা থেকে নিখোঁজ থাকা ৩ যাত্রীর মধ্যে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

জুলধা ডাঙ্গাচর ৩নং ওয়ার্ড দিঘীর পাড় শুক্কুর মেম্বারের বাড়ীর আবদুল খালেকের ছেলে মো. হানিফ (৩৫)

এবং একই উপজেলার ডাঙ্গাচর ১নং ওয়ার্ডের সিদ্দীকের বাড়ী নুরুল ইসলামের ছেলে মো. আকবর (৩৬)’র লাশ উদ্ধারের পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় নিহতদের পরিবারের সদস্যদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

বিএম/রাজীব সেন…

আরো খবর : নিখোঁজ ২ জনের মরদেহ উদ্ধার : এখনো নিখোঁজ নির্মাণ শ্রমিক হাবিব