কমরখন্দে ভটভটিতে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ৩

বিএম ডেস্ক : সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার কয়েলগাঁতী এলাকায় মৈত্রী ট্রেনের ধাক্কায় চালকসহ ভটভটির তিনযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হয়েছে আরও দুই জন। দুর্ঘটনায় দুটি গরুও মারা গেছে।

শনিবার দুপুর পৌনে দুইটার দিকে ঢাকা-ঈশ্বরদী রেলপথে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন উপজেলার বড়কুড়া গ্রামের মৃত রহম আলীর সন্তান ভটভট চালক সুর্য্য সেখ (৪০) ও পাকুরিয়া গ্রামের বিশা মন্ডলের পুত্র গরু ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম (৩৮) এবং আব্দুল হামিদের ছেলে নেহার আলী (৩৭)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর মো. আব্দুল হামিম জানান, কামারখন্দ উপজেলা থেকে গরু বোঝাই করে শ্যালো ইঞ্জিন চালিত ভটভটিতে (ঢাকা মেট্রো-ন-১৪-৮১৪২) করে উল্লাপাড়ার জনতার হাটে যাচ্ছিলেন সুজনসহ কয়েকজন ব্যবসায়ী। ভটভটিটি কয়েলগাঁতী এলাকার অরক্ষিত রেলক্রসিং পার হওয়ার সময় কলকাতা থেকে ঢাকাগামী মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে ধাক্কা লেগে দুমড়ে মুচড়ে উল্টে যায়। এসময় ঘটনাস্থলেই ভটভটির চালক সুজন মিয়ার মৃত্যু হয়। আহত চারজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে দুইজন মারা যান।

উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার সমনুল হক বলেন, আহতদের হাসপাতালে আনার আগেই একজন এবং হাসপাতালে আনার পর দুজনের মৃত্যু হয়। অন্য দুইজনকে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

কামারখন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, নিহতদের মৃতদেহ পরিবারের লোকজন নিয়ে গেছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত প্রত্যেককে ২৫ হাজার করে অনুদান দেয়া হয়েছে।

কামারখন্দ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সফিকুল ইসলাম জানান, পুলিশ দুর্ঘটনাকবলিত ভটভটিটি নিজেদের হেফাজতে রেখেছে। লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।