ভালো চিকিৎসক হওয়ার প্রধান শর্ত ভালো মানুষ হতে হবে : লোটে শেরিং

বিএম ডেস্ক : একজন ভালো চিকিৎসক হবার প্রধান শর্ত তাকে ভালো মানুষ হতে হবে। কখনও অবহেলা করা যাবে না রোগীকে। নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে গিয়ে একথা বলেছেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং।

রোববার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে অডিটোরিয়ামের এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন লোটে শেরিং।

লোটে শেরিং বলেন, ডাক্তারি আর দশটা পেশার মত নয়। তাই চিকিৎসকদের সব সময়ই সচেতন থাকতে হয়। যতক্ষণ ডিউটি থাকবে, ততক্ষণ চিকিৎসকদের গুরুত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের ওপর গুরুত্ব দেন তিনি।

এরআগে, বেলা ১১টা নাগাদ হেলিকপ্টারে ঢাকা থেকে তিনি স্বস্ত্রীক ময়মনসিংহে পৌঁছান। সাথে ছিলেন ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও।

উল্লেখ্য, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং ডাক্তারি পড়েছেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলজে। দীর্ঘ সময় বাংলাদেশে কাটানো,বন্ধু পাগল এই মানুষটি বাঙ্গালীর উৎসব ঐতিহ্যকে লালন করেন অন্তর থেকে। তাই এবারের পহেলা বৈশাখে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের বন্ধুদের নিয়ে উৎসবে কাটাতে ছুটে গেছেন ময়মনসিংহে নিজ ক্যাম্পাসে।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ছাত্র থাকাকালীন বন্ধুদের সাথে শেরিং

১৯৯১ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন লোটে শেরিং। মিশুক প্রকৃতির টগবগে যুবক, বিদেশী হয়েও অল্প সময়ে জুটিয়ে নেন অনেক বন্ধু বান্ধব। উৎসব আনন্দে বন্ধুদের সাথে লোটে থাকবেনা এমনটি কল্পনাও করা যেতোনা।

যেই ক্যাম্পাসে বন্ধুদের সাথে হই-হুল্লোর করে কাটিয়েছে অনেক বৈশাখ, আজ সেই ক্যাম্পাসে পা রাখলেন প্রধানমন্ত্রী হয়ে।

তার সহপাঠি ডা. রুহুল কুদ্দুস বলেন, বন্ধু আজ প্রধানমন্ত্রী সেই গর্ভে বুকটা ফুলে উঠতেই পারে। এখন অপেক্ষা ১৬ বছর পর তাকে দেখার, অতীতের সাথে বর্তমান লোটেকে মিলিয়ে নেয়ার।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে বর্তমানে ২ জন ভুটানের শিক্ষার্থী রয়েছেন। নিজের দেশের প্রধানমন্ত্রী যে দেশে, যে প্রতিষ্ঠানে শিক্ষা অর্জন করেছেন তার উত্তরসূরি হতে পেরে উচ্ছাসিত তারা।

১৯৯৮ সালে এম বি বি এস পাশ করে বের হন লোটে শেরিং। এরপর জেনারেল সার্জারি বিষয়ে এফসিপিএস করেন সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০৩ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশে ছিলেন।

বিএম/রনী/রাজীব