ছেলের বন্দিদশা মুক্ত পিতা!

ছেলের বন্দিদশা থেকে পিতাকে মুক্ত করলেন ইউএনও

কক্সবাজার প্রতিনিধি : উখিয়ায় মাদকাসক্ত ছেলের বন্দিদশা থেকে বৃদ্ধ পিতাকে মুক্ত করলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী। শুধু তাতেই শেষ নয়, ওই বৃদ্ধকে নিজ কার্যালয়ে এনে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেন। খেতে দেন দুপুর বেলায় খাবার।

শেকলবন্দি থেকে মুক্ত হওয়া বৃদ্ধের নাম মামসু ফকির। তিনি উখিয়া রাজাপালং ইউনিয়নের টাইপালং এলাকার বাসিন্দা। দীর্ঘদিন ধরে শেকল দিয়ে তার হাত-পা বেঁধে রাখে মাদকাসক্ত ছেলে জসীম উদ্দিন। যে পিতা খেয়ে না খেয়ে, কোলে পিঠে করে বড় করেছেন, সেই পিতাকে মারধর করেছে মধ্যযুগীয় কায়দায়। এমন নিষ্ঠুর ও অমানবিক নির্যাতনের খবর পেয়েও ভয়ে মুখ খুলেননি স্থানীয় লোকজন।

তবে, এই বৃদ্ধ মানুষকে কেন বেঁধে রাখা হলো? কেনইবা নির্যাতন করা হলো? সে বিষয়ে সঠিক রহস্য এখনো জানা যায়নি। এক সংবাদকর্মী  প্রতিবাদ স্বরূপ নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস লিখেন। তোলপাড় করা ওই স্ট্যাটাস নজর কাড়ে সব শ্রেণী-পেশার মানুষের। নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। অবশেষে সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে ইউএনও নিকারুজ্জাম চৌধুরী নিজে গিয়ে শেকলবন্দি শামসু ফকিরকে উদ্ধার করেন।

এই প্রসঙ্গে ইউএনও মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, মাদকাসক্ত ছেলে কর্তৃক এক বৃদ্ধ পিতাকে হাতে পায়ে শেকল দিয়ে বেঁধে রাখার সংবাদ পেয়ে রেখেছে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়। বর্তমানে তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় প্রথম বৃদ্ধা ছবি আপলোড করা ফেসবুক ব্যবহারকারীকে ধন্যবাদ জানান এবং অভিযুক ছেলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার ঘোষণা দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।বৃদ্ধকে উদ্ধারে সহায়তাকারী সংবাদকর্মী ও প্রশাসনের তড়িৎ সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

বিএম/ইসলাম/রাজীব..