‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ২৫ এপ্রিল যাত্রা শুরু করবে

বনলতা এক্সপ্রেস

বিএম ডেস্ক : রাজশাহী-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ আগামী ২৫ এপ্রিল চালু হতে যাচ্ছে। ট্রেনটি পয়লা বৈশাখ থেকে যাত্রা শুরুর কথা থাকলেও তখন সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন না হওয়ায় অবশেষে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেই চালু হচ্ছে।

এ উপলক্ষে ওই দিন সকাল ১০টায় রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ট্রেনটির উদ্বোধন ঘোষণা করবেন।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন আজ মঙ্গলবার বিষয়টির তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মেয়র খায়রুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) খন্দকার শহীদুল ইসলাম তাঁকে জানিয়েছেন, ২৫ এপ্রিল বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেন উদ্বোধনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ট্রেনটি উদ্বোধন করবেন। রাজশাহীতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন উপস্থিত থাকবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জন্য সকাল ৭টার পরিবর্তে ওই দিন সকাল ১০টায় রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে ট্রেনটি। অন্য দিন যথারীতি সময়সূচি অনুযায়ী ট্রেনটি চলবে।

মেয়র আরও বলেন, তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিগুলোর মধ্যে একটি ছিল রাজশাহী-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন চালু করা। এই ট্রেনের অনুমোদন দেওয়ায় তিনি রাজশাহীবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞা জানান।

রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে প্রথম বিরতিহীন ট্রেনের নাম ‘বনলতা এক্সপ্রেস’। নামটি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১২টি বগি নিয়ে ট্রেনটি বিরতিহীনভাবে চলবে। নতুন ট্রেন সার্ভিসে ইন্দোনেশিয়া থেকে আনা নতুন বগি যুক্ত করা হবে। রাজশাহী থেকে সকাল ৭টায় ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে বেলা ১১টায়। আবার একই দিন ট্রেনটি রাজশাহীর উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বে বেলা দেড়টায়। রাজশাহী রেলস্টেশনে পৌঁছাবে বিকেল সাড়ে পাঁচটায়।

এই প্রথম দেশের আন্তঃনগর কোনো ট্রেনে উড়োজাহাজের মতো বায়োটয়লেট সংযুক্ত হচ্ছে। এ কারণে মলমূত্র আর রেললাইনের ওপরে পড়বে না। স্টেশনে দাঁড়ানো থাকা অবস্থায়ও যাত্রীরা টয়লেট ব্যবহার করতে পারবেন। প্রথমবারের মতো ট্রেনটিতে রিক্লেনার চেয়ার বসানো থাকবে। যেখানে পা এবং হেলান দেওয়ার আরামদায়ক সুবিধা রয়েছে। আর এসি বাথের কেবিনে বেডরেস্ট দেওয়া হবে। যা রাতে বিছিয়ে দিলে ছোট খাটের মতো হয়ে যাবে। এছাড়া কেবিনে ওপরের সিটে ওঠার জন্য স্টিলের মইয়ের বাদলে সিঁড়ি দেওয়া হয়েছে।

পহেলা বৈশাখের দিনে ট্রেনটির উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল উল্লেখ করে জিএম খোন্দকার শহিদুল ইসলাম বলেন, নতুন ট্রেনের যন্ত্রাংশসহ সব ধরনের টেকনিক্যাল কাজ শেষ করতে এরই মধ্যে কিছুটা সময় লেগে গেছে। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে ট্রেনটি চালুর জন্য সিটি মেয়রের দাবি থাকায়, তা ২৫ এপ্রিলই উদ্বোধন হতে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং রাজশাহী সদর আসনের এমপি ফজলে হোসেন বাদশার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল রাজশাহী-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন চালুকরণ। ট্রেনটির অনুমোদন এবং উদ্বোধনের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করায় রাজশাহীবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে আবারও ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞা জানিয়েছেন রাসিক মেয়র লিটন এবং সদর আসনের এমপি বাদশা।

বিএম/রনী/রাজীব