সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব সংসদে জমা


বিএম ডেস্ক : সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর ও অবসরের বয়স ৬২ বছর করার প্রস্তাব জাতীয় সংসদে উপস্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি। প্রস্তাবটি সংসদের আইন শাখা-২ এ ইতোমধ্যে জমাও দিয়েছেন রাশেদ খান মেনন।

এ ব্যাপারে রাশেদ খান মেনন বলেন, তরুণ সমাজের দীর্ঘদিনের দাবি সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানো। এটি আমার কাছে একটি যৌক্তিক দাবি বলে মনে হয়। এজন্য সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি আনা হবে। আমার সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি হলো, ‘সংসদের অভিমত এই যে, সরকারি-বেসরকারি চাকরিতে ঢোকার বয়সসীমা ৩৫ বছর ও অবসর গ্রহণের বয়সসীমা ৬২ করা হোক।’

তিনি আরও বলেন, আমি আরও দুটি সিদ্ধান্ত প্রস্তাব এনেছি, এগুলো হলো- ‘সংসদের অভিমত এই যে, গ্রামীণ ক্ষেতমজুর নির্মাণকর্মীসহ সবস্তরের শ্রমজীবী মানুষের জন্য পেনশন স্কিম চালু করা হোক।’ আরেকটি হলো, ‘সংসদের অভিমত এই যে, ব্যাংকিংখাতে আর্থিক নৈরাজ্য ও অব্যবস্থাপনা দূরীকরণার্থে উপায় উদ্ভাবন ও সুপারিশ গ্রহণের জন্য ব্যাংকিং কমিশন গঠন করা হোক।’

আগামী ২৪ এপ্রিল বিকাল ৫টায় একাদশ জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হবে। অধিবেশন শুরুর এক ঘণ্টা আগে সংসদের কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

গত বছর বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলন করে আসছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদ নামের একটি সংগঠন। ওই সময় সংগঠনের নেতারা দাবি জানান, বর্তমানে বেঁধে দেয়া বয়স ৩০ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ করতে হবে। বিশ্বের ১০৭টি দেশে চাকরির বয়সের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইউরোপসহ এসব দেশে চাকরির বয়স হচ্ছে ৩৫ থেকে ৫৯ পর্যন্ত। তাই বাংলাদেশেও বয়সসীমা বাড়ানোর পক্ষে আন্দোলন করছেন তারা।

বিএম/রনী/রাজীব