নুসরাতদের নিরাপত্তায় রাজনীতিবিদরা ব্যর্থ : ফখরুল

বিএম ডেস্ক : ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় রাজনীতিবিদদের ব্যর্থতা দেখছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে শাপলা কুড়ি একাডেমীর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘শিশুরা আগামীর ভবিষ্যৎ। তাই তাদের বেড়ে ওঠার প্রতি খেয়াল রাখতে হবে। তারা যেন বিপথে না যায়।’

তিনি বলেন, ‘সুন্দর বাংলাদেশ গড়তে রাজনীতিবিদদের ব্যর্থতার কারণেই নুসরাত জাহান রাফিকে প্রাণ দিতে হয়েছে।’

‘আজকের এই অনিরাপদ বাংলাদেশের দায়ভার আমাদেরই। তারপরও সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি। একদিন নিশ্চয়ই হিংসা ও বিদ্বেষমুক্ত দেশ গড়ে উঠবে আজকের শিশুদের হাত ধরে।’

শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ার লক্ষ্যে দলমত নির্বিশেষে সকলকে একত্রে কাজ করার আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, এখন প্রতিনিয়ত শিশুদের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চলছে। আজ শিশুরা কু-শিক্ষা ও অপ-সংস্কৃতিরে রোষানলে আবদ্ধ। প্রতি মুহূর্তে আমরা যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছি। যন্ত্রের কাছে চলে যাচ্ছি। প্রযুক্তির কাছে হেরে যাচ্ছি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা ১৯৭১ সালে একটা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম। কেন করেছিলাম? সবাই বইয়ে পড়ি স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছিলাম। কিন্তু সেই স্বাধীনতা যুদ্ধ কেনও করেছিলাম? তখন আমরা যে দেশে বাস করছিলাম, সেই দেশটা নিজেদের দেশ বলে মনে হচ্ছিল না। মনে হচ্ছিল, কেউ বুঝি আমাদের বুকের ওপর চেপে বসে আছে। নিঃশ্বাস নিতে পারতাম না। এটা থেকে বের হয়ে আসতে চেয়েছিলাম। সেই কারণে যুদ্ধ করেছিলাম।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ, চলচ্চিত্রকার ছটকু আহমেদ, অভিনেত্রী রিনা খান, শিল্পী শফি মন্ডল, শিল্পী জিনাত রেহানা প্রমুখ। বক্তব্যের পরে শিশুরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয়।

আরো খবর:: নুসরাতের খুনিদের ফাঁসির দাবিতে চট্টগ্রামে মানববন্ধন