খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে নির্বিকার সরকার-ডা.শাহাদাত

চট্টগ্রাম বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত

চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন বেগম খালেদা জিয়া বর্তমানে গুরুতর অসুস্থ দাবী করে বলেন, বেগম জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যাপারে সরকার নির্বিকার।

বেগম জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা এবং বিএনপির পক্ষ থেকে বার বার বিশেষায়িত ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার দাবি জানালেও সরকার এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। পিজি হাসপাতালে সুচিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না বলেই তার শারীরিক পরিস্থিতি ভয়ংকর খারাপের দিকে যাচ্ছে।

তিনি ২০ এপ্রিল শনিবার বিকেলে নগরীর লাভ লেইনস্থ সিএমইউজে মিলনায়তনে বেগম খালেদা জিয়া ও কেন্দ্রীয় যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর মুক্তির দাবিতে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত সভায় তিনি অভিযোগ করে বলেন, গুরুতর অসুস্থ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে অবহেলা চলছে। বেগম জিয়ার জীবন নিয়ে সরকার মহাচক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। ইউনাইটেড হাসপাতালের উন্নত মানের চিকিৎসার দাবি উপেক্ষা করে সরকার তাকে পিজিতে নিয়ে যাওয়া দুরভিসন্ধিমূলক। যথাযথ চিকিৎসা হচ্ছে না তার। তারপরও জবরদস্তীমূলকভাবে বেগম খালেদা জিয়াকে পিজিতে চিকিৎসার জন্য নেওয়া সরকারের সুপরিকল্পিত চক্রান্ত।

প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান বক্তার বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী। সেজন্যেই আওয়ামীলীগ বেগম জিয়াকে ভয় পায়। তাই তারা রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে বিএনপির নেতাকর্মীদের নির্মম নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। মধ্যরাতের নির্বাচনের সরকার বর্তমানে সম্পূর্ণ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, স্বৈরাচারি শাসনে অতিষ্ঠ জনগণ ভোটার বিহীন এই সরকারকে হঠাতে অচিরেই রাজপথে নেমে আসবে। জনগণ আন্দোলন শুরু করেছে এর শেষ হবেই।

প্রতিবাদ সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য সাথী উদয় কুসুম বড়ুয়া, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন।

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পরিষদ চট্টগ্রাম উত্তর জেলার আহ্বায়ক যুবদল নেতা এম ইলিয়াছ আলির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির উপদেষ্টা জাহিদুল করিম কচি, বিএনপি নেতা শাহেদ বক্স, শামসুল হক, কামরুল ইসলাম, সরওয়ার উদ্দিন সেলিম, মনজুর রহমান চৌধুরী, ও দিলরুবা সফিক।

বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পরিষদের সদস্য সচিব এম শাহ্জান সাহিল ও যুগ্ম আহ্বায়ক আবু বকর সোহেলের পরিচালনায় অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নিজামুল হক তপন, রফিকুল ইসলাম, ইদ্রিস আলী, আবু মুছা, আব্দুল হাই, আলহাজ্ব জাকির হোসেন, আজমত আলী বাহাদুর, মো: ইউসুফ, হাশেম খান, এম.কে নবী, শাফায়েতুল ইসলাম সাবাল, ইলিয়াছ চৌধুরী, সাবের সুলতান কাজল, সুজন পাশা, জিয়াউর রহমান জিয়া, বাবুল মেম্বার, ইফতেখার রুবেল, এরশাদ হোসেন, কামরুল ইসলমা, আইয়ুব মেম্বার, এস.এম লোকমান, কবি নুরুন্নবী, মোস্তাকিম মাহমুদ, কামরুল ইসলাম কুতুবী, মো: আলমগীর, এড. মাঈনুদ্দিন, সাইফুল ইসলাম তালুকদার, কাজী এরশাদ উদ্দিন, তসলিম উদ্দিন ইমন, শফিউল আজম, রায়হান উদ্দিন, মো: হোসেন, জিয়া উদ্দিন মিজান, এম.জি কিবরিয়া, রায়হান আলম, সালাউদ্দিন কাদের আসাদ, সৈয়দ সাফোয়ান আলী, ফরিদ উদ্দিন, ছোটন, রহমত উল্লাহ, রিমন চৌধুরী বাপ্পা, এন. মুহাম্মদ রিমন, রবিন প্রমুখ।

বিএম/রাজীব..