প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখে ইডেন কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা

বিএম ডেস্ক : বরিশাল সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মাহীবি হাসান নামে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক ছিল মেঘার। দীর্ঘদিন যাবত তাদের পরিচয়। মাহীবি হাসান মেঘাকে বিয়ের কথা বলে তার সাথে একাধিকবার শারিরীক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিল।

এদিকে মেঘা তার প্রেমের সম্পর্কের কথা তার পরিবারের সদস্যদের আগেই জনিয়েছিলেন। এর জন্য মাহীবি হাসানকে বিয়ের বিষয়টি অবহিত করতে বলা হয় মেঘাকে। মেঘাও বিষয়টি তার বয়ফ্রেন্ড মাহীবিকে জানান। স্বপ্ন দেখিয়েছেন সুখের সংসারের।

তবে শেষ পর্যন্ত প্রতারণার আশ্রয় নেন তিনি। তবে এবার বেঁকে বসেন তিনি। মেঘাকে জানিয়ে দিলেন তার সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখা সম্ভব নয়। এনিয়ে বাকবিতণ্ডা চলছিল ভিডিও কলেই। এক পর্যায়ে রোববার (২১ এপ্রিল) ভিডিও কল রেখেই ফ্যানের সঙ্গে আত্মহত্যা করেন মেঘা।

মেঘা ও মাহাবী

মেঘার মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে মাহিবী ঝালকাঠিতে মেঘার মা রুবিনা আজাদকে মোবাইল ফোনে মেঘার মৃত্যর বিষয়টি জানায়। মেঘার মা বিষয়টি ঢাকায় মেঘার বান্ধবী আনিকাকে জানালে আনিকা কিছু বন্ধুবান্ধব নিয়ে কাঁঠালবাগানের বাসায় যায়।

তারা বাসায় গিয়ে বাড়ির মালিকের সহায়তায় দরজা ভেঙে ঝুলন্ত অবস্থায় মেঘাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা মেঘাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানা যায়, মেঘা ইডেন মহিলা কলেজের সমাজকর্ম বিভাগের অনার্স দ্বিতীয়বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। মেঘার বাড়ি ঝালকাঠি জেলা সদরে। তার বাবার নাম আবুল কালাম আজাদ ও মা রুবিনা আজাদ।

মেঘা

ইডেন কলেজের মেধাবী ছাত্রী মেঘার জীবনের গল্পটা এখানেই শেষ। তবে তার জীবনের গল্পটা অন্যরকম হতে পারতো। বয়ফ্রেন্ডের প্রতারণার শিকার না হলে তাদের একটি সুখের সংসার হতে পারতো। মেয়েকে হারিয়ে পরিবারের সদস্যদের মাঝে শোক বিরাজ করছে।

মেঘার বান্ধবীদের বরাত দিয়ে মেঘার চাচা আবুল বাশার জানান, শবেবরাতের দুদিন আগে শুক্রবার ঢাকায় কাউকে না জানিয়ে তাদের বিয়ে করার কথা ছিল। এ জন্য মেঘা কিছু কেনা কাটাও করেছিল। কিন্তু মাহিবী কথা দিয়েও বিয়ের জন্য আসেনি। এ নিয়ে মোবাইল ফোনে তাদের ঝগড়া হয়।

খবর পেয়ে মেঘার চাচা ঢাকার একটি স্কুলের শিক্ষক আবুল বাশার ঢাকার কলাবাগান থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর কলাবাগান থানার এসআই মো. সেলিম রেজা সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে লাশের ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করেন।

এসআই সেলিম রেজা বলেন, মেঘার চাচা যে ইউডি মামলা করেছেন তার ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। মেঘার আত্মহত্যার পেছনে কারো প্ররোচনা থাকলে তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে। তখন দণ্ডবিধির ৩০৬ ধারায় প্ররোচনা দানকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

এ বিষয়ে মেঘার বড় ভাই সম্রাট জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে মেঘার নিজ জেলা ঝালকাঠিতে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।

এর আগে গত রবিবার মেঘার সঙ্গে ওই যুবকের ভিডিও কলে বিয়ে নিয়ে কথা হয়। কিন্তু এতে রাজি না হওয়ায় মেঘা ভিডিও কল রেখেই আত্মহত্যা করেন। তার বোনের সঙ্গে প্রতারণার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না তিনি।

এদিকে বুধবার ঝালকাঠি শহরের পূর্বচাদকাঠি বিআইপি কলোনির পেছনে মাহিবী হাসানের বাড়িতে গেলে দোতলা বাড়ির নিচতলায় কলাপসিবল গেটে তালা লাগানো দেখা যায়

নিচতলার ভাড়াটিয়া একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. গাজী হায়দার বলেন, আমি আমার দুই বোন নিয়ে নিচতলায় ভাড়া থাকি। বাড়ির মালিক জেলা জজ আদালতের পেশকার মো. নফিসুর রহমান কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তার স্ত্রী সেলিনা বেগম এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে দোতলায় থাকেন। গত ২১ এপ্রিল শবেবরাতের দিন রাতে তারা কোথায় চলে গেছে আমরা জানি না। গত ৩-৪ দিন ঘরে তালা মারা।

স্থানীয়রা জানায়, বাবা মারা যাওয়ার পর কিছুটা বখে যায় সুদর্শন মাহিবী হাসান। একাধিক মেয়ের সঙ্গে সে প্রেম করতো। তার প্রেমের সর্বশেষ বলি ইডেন কলেজের ছাত্রী সায়মা কালাম মেঘা।

ঘটনার পর থেকে আত্মগোপনে রযেছেন মেঘার প্রতারক বয়ফ্রেন্ড মাহীবি হাসান।

বিএম/রনী/রাজীব