আজ ছাত্রলীগের কমিটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেয়া হবে

বিএম ডেস্ক : ঘোষণার অপেক্ষায় রয়েছে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। আজ কমিটির তালিকা তুলে দেওয়া হচ্ছে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে। তার নির্দেশনা পেলেই যে কোনো সময় ঘোষণা হবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি।

অপরদিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে ঘোষণা করা হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটিও।

ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের দায়িত্ব পাওয়া শীর্ষ নেতৃত্বের তথ্যমতে, চুলচেরা যাচাই-বাছাই ও বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হয়েছে। যেহেতু এর আগে ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশ ঘটানোর অভিযোগ ছিল, সেদিক বিবেচনায় পদপ্রত্যাশীদের বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে খোঁজখবর নিয়ে কমিটিতে রাখা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘একাধিকবার বৈঠক করে খসড়া তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। শুক্রবার সে তালিকা তুলে দেওয়া হবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে। তিনি অনুমোদন দিলেই যে কোনো সময়ে ঘোষণা করা হবে কেন্দ্রীয় কমিটি।

এদিকে ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীরা শেষ মুহূর্তে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্বের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা, এমপি ও সাবেক ছাত্রনেতাদের কাছে তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ আওয়ামী পরিবারের সদস্য প্রমাণ দিতে জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্রও নিয়ে আসছেন।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, ‘সবার সঙ্গে পরামর্শ করেই আমরা কমিটি প্রস্তুত করেছি। তারপরও বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

গত বছরের ১১-১২ মে ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনের আড়াই মাস পর ৩১ জুলাই সভাপতির পদে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক পদে গোলাম রাব্বানীর নাম ঘোষণা করা হয়। দায়িত্ব পাওয়ার পর নানা ইস্যুতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতা। ফলে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে ব্যর্থ হন তারা। এ ছাড়াও তারা গ্রুপিংয়ে জড়িয়ে পড়েন। গত ১৫ এপ্রিল ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে দীর্ঘসূত্রতা ও নেতিবাচক কর্মকান্ডে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। দ্রুত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে ব্যর্থ হলে প্রয়োজনে ছাত্রলীগের বর্তমান দুই সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙে নতুন সম্মেলন করার হুমকি দেন তিনি। সেদিন তার বাসভবন গণভবনে ক্ষোভ প্রকাশের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের চার নেতাকে ছাত্রলীগের বিষয়টি দেখভালের দায়িত্ব দেন তিনি।

এদিকে কেন্দ্রীয় কমিটি না হওয়ায় ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগরের দুই গুরুত্বপূর্ণ শাখার কমিটিও আটকে আছে। তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা প্রকাশের পরপরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ, ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণেরও পূর্ণাঙ্গ কমিটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে।

বিএম/রনী/রাজীব