ডাব গাছে আটকা পড়ল চোর, নামাতে লাগল তিন বাহিনী

বিএম ডেস্ক : তীব্র তাপদাহে তৃষ্টা মিটাতে ডাবগাছে উঠেছিলেন আনন্দ। কিন্তু এর পরিনামটা মোটেও আনন্দজনক হয়নি।

বরং ঘটেছে তুলকালাম। তৃষ্ণা মেটাতে প্রায় ২’শ ফুট লম্বা নারকেল গাছে উঠে মরতে বসেছিলেন আনন্দ কুমার দাস (৩০) নামের এক ব্যক্তি।

গাছে উঠে তিনি নামতে পারছিলেন না। তবে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, বিদ্যুৎ বিভাগ ও স্থানীয়দের কয়েক ঘণ্টা চেষ্টায় প্রাণে বেঁচে যান তিনি।

শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার বিএডিসি ডাকবাংলো এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আনন্দ কুমার দাস কুলিয়ারচর উপজেলার দাসপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

জানা গেছে, প্রচণ্ড গরমে অতিষ্ঠ হয়ে চুরি করে ডাব খাওয়ার ফন্দি এঁটে কুলিয়ারচর বিএডিসি ডাকবাংলোর একটি নারিকেলগাছে উঠেন আনন্দ কুমার দাস। পরে আর নামতে না পেরে নারিকেলগাছেই আটকা পড়েন তিনি। এ সময় যুবক ভয়ে কান্নাকাটি শুরু করেন।

এ ঘটনা লোকজন দেখতে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ,বিদ্যুৎ ও ফায়ার সার্ভিসে খবর পাঠান।

খবর পেয়ে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ,বিদ্যুৎ ও ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়। প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টার পর বড় মইয়ের সাহায্যে তাকে জীবিত অবস্থায় নারিকেলগাছ থেকে নামিয়ে আনেন ফায়ার সার্ভিসের লোকজন।

কুলিয়ারচর থানার ওসি আবদুল হাই তালুকদার জানান, আনন্দ স্বীকার করেছেন ডাব চুরি করার কথা।

তিনি জানান, প্রচণ্ড গরম লাগায় নারিকেলগাছ থেকে ডাব পাড়তে গিয়ে তিনি আর নামার সাহস পাচ্ছিলেন না। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

কুলিয়ারচর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মো. আবুল কালাম বলেন, ‘নারিকেল গাছে কেউ আটকা পড়ার ঘটনা এটাই প্রথম। আমারা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ২’শ ফুট ওপর থেকে নামানোর মতো আমাদের কোন লেডার নেই। তাই বিদ্যুৎ বিভাগের মই দিয়ে এবং আমাদের লম্বা রশির সাহায্যে তাকে নিরাপদে নামিয়ে আনা হয়।’

বিএম/রনী/রাজীব