জার্সি পরিবর্তন করতে আইসিসির দারস্থ হচ্ছে বিসিবি

বিশ্বকাপ স্কোয়াডের ফটোসেশন

আসন্ন ক্রিকেট বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে গতকাল বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

এদিন ক্রিকেটাররা বিশ্বকাপের জার্সি পরে অফিসিয়াল ফটোসেশনে অংশ নেন। মুহূর্তের মধ্যে জার্সির ছবি সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে।

বিশ্বকাপের জন্য দুই রকমের জার্সি বানিয়েছে বিসিবি। একটি হচ্ছে সবুজ। সবুজ জার্সিতে লাল রঙের কোনো ছোঁয়া নেই। আরেকটি হচ্ছে লাল রঙের জার্সি। এই জার্সিতে হালকা সবুজ রঙ আছে। মূলত বেশিরভাগ ম্যাচেই সবুজ জার্সি পরে খেলবে টাইগাররা। যদি প্রতিপক্ষের জার্সির রঙের সাথে মিলে যায় তাহলে লাল রঙের জার্সি পরে খেলবেন মাশরাফিরা।

সোমবার জার্সি উন্মোচনের পরপরই সৃষ্টি হয়েছে বিতর্ক। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বইছে সমালোচনার ঝড়। অনেকে বলছেন, সবুজ রঙের এই জার্সি পাকিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের জার্সির সঙ্গে মিলে গিয়েছে। বিশেষ করে এই জার্সি লাল রঙের কোনো ছোঁয়া না থাকাতেই বেশি সমালোচনা হচ্ছে। কারণ, বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার রং লাল-সবুজ।

এমন পরিস্থিতিতে জার্সি পরিবর্তনের জন্য ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের কাছে আবেদন করবে বিসিবি। এমনটি জানিয়েছেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। তিনি বলেছেন, ‘হুট করে তো আর জার্সি পরিবর্তন করা যায় না। একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। আমরা বিষয়টি আইসিসিকে জানাব। যেহেতু জার্সিতে লাল রঙ না থাকার বিষয়ে কথা হচ্ছে। আমরা পরিবর্তিত জার্সিতে লাল রঙ রাখার চেষ্টা করব।’

তিনি আরো বলেন, ‘সবুজ জার্সিতে আমরা লাল রঙ রাখতে চেয়েছিলাম। নাম ও জার্সি নম্বর লাল রঙের ছিল। কিন্তু আইসিসির নির্দেশে ওটা সরিয়ে দিতে হয়েছে।’

দেশের দুই ব্র্যান্ডশপ অঞ্জনস ও জেন্টল পার্কের প্রায় শতাধিক আউটলেটে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ জার্সি পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া অনলাইনে ক্রিকশপ বিডি ও জার্সি ফ্রিক বিডির এবং স্পোর্টস অ্যান্ড স্পোর্টজের এক্সক্লুসিভ পার্টনার ডিমানি অ্যাপের মাধ্যমে ঘরে বসেই জার্সি পাওয়ার কথা রয়েছে। তবে জার্সির পরিবর্তন চলমান বিপণন ব্যবস্থায়ও বড় পরিবর্তন আনতে পারে।

বিএম/রনী/রাজীব