রাউজানে ট্রাকে মিলল শ্রমিকের লাশ : ট্রাক চালক আটক

রাউজান প্রতিনিধি : গুম করার উদ্দেশ্যে ট্রাকে করে লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় এক আদিবাসীর লাশ উদ্ধার করেছেন রাউজান থানা পুলিশ। মঙ্গলবার ভোর ৬ টায় সময় রাউজান থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানের সময় চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের রাউজান-কাউখালী সীমান্তে যানবাহন তাল্লাসীকালে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। এই সময় ট্রাক ড্রাইভারকেও আটক করে পুলিশ।

উদ্ধারকৃত লাশটি রাঙামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার বেতবুনিয়া ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডেও সাপমারা গ্রামের মৃত সুইচা অং মারমার পুত্র থোয়াই চিং মং মারমা(৩৬)। তিনি একজন পরিবহন শ্রমিক। তার এক ছেলে এক মেয়ে সন্তান রয়েছে জানা যায়।

ট্রাকের চালকের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, কাউখালীর তারাবুনিয়ার সুগার মিল এলাকায় একটি ইটভাটায় একটি ট্রাক ( চট্টমেট্রো ট-০৫-০৫৫৮) হতে জ্বালানি কাঠ খালাস করে ট্রাকের পেছনের ঢালাটির হুক লাগানোর সময় ছুটে গিয়ে সেই ট্রাকের শ্রমিক থোয়াই চিং মং মারমার মাথায় আঘাত লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। প্রশাসনিক ঝামেলা এড়াতে লাশটি গুম করার উদ্দেশ্যে ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়ায় প্রাক্ষালে পুলিশের হাতে আটক হয়।

আটককৃত ট্রাক চালকের নাম জাহাঙ্গীর আলম। তিনি রাউজান ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কেউটিয়া গ্রামের মৃত আব্দুস ছত্তারের পুত্র।

এই বিষয়ে রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার এস.আই নুর নবী বলেন, থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানের অংশ হিসেবে আজ (৩০ এপ্রিল) ভোর ছয়টায় চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের রাউজানের পূর্ব সীমান্তে চেকপোস্টে কাউখালী হতে আসা একটি ট্রাককে দাঁড়ানো সংকেত দিলে ট্রাকটি সংকেত অমান্য করে পালানোর চেষ্টা করে। পুলিশ তাড়া করে ট্রাকটি আটক করে। এই সময় ট্রাকের ভেতর পলিথিন মোড়ানো লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে লাশটি থানায় নিয়ে এসে কাউখালী থানার পুলিশের সহযোগিতায় লাশের পরিচয় নিশ্চিত করা হয়।

সংবাদ পেয়ে থানায় উপস্থিত হন নিহত থোয়াই চিং মারমার স্ত্রী মিচাচিং মারমা, বোন মাচিং মারমা ও অন্যান্য স্বজনরা। নিহতের বোন মাচিং মারমা বলেন, আমরা খুবই গরীব। আমি আমার ভাইয়ের হত্যার বিচার চাই। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকাল ৩ টা) লাশ থানায় ছিলেন এবং রাউজান থানা ও কাউখালী থানা পুলিশের আলোচনার ভিত্তিতে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

বিএম/হামজা/রাজীব..