বর্তমানে শ্রমিকরা ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত-এ.এম নাজিম উদ্দিন

????????????????????????????????????

চট্টগ্রাম মেইল : বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এ.এম নাজিম উদ্দিন বলেছেন- পহেলা মে শ্রমজীবি মানুষের অধিকার আদায়ের এক রক্তঝরা সংগ্রামের দিন। শ্রমিকের ন্যায্য দাবী ও অধিকার আদায়ের সংগ্রামে শিকাগো শহরে ১৮৮৬ সালে রচিত হয়েছিল এক রক্ত মাখা ইতিহাস। দীর্ঘ বঞ্চনা আর শোষনের শিকার হতে মুক্তি পেতে সেদিন শ্রমিক শ্রেণি বুকের রক্ত ঝরিয়েছিল। সেদিন শোষক শ্রেণির বিরুদ্ধে গড়ে ওঠেছিল শ্রমিক জনতার বৃহত্তর ঐক্য। তাদের রক্তে রঞ্জিত হয়ে সৃষ্টি হয়েছিল অমর এক উপাখ্যান।

জনতার জোয়ারে ৮ ঘন্টা কাজের দাবী মেনে নিতে বাধা হয়েছিল শোষকশ্রেণী। দেশে বর্তমানে জনগণের সরকার না থাকায় শ্রমিক সমাজ তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত। শ্রমিক অধিকার ফিরে পেতে দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হবে। তিনি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, হারানো গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ে শ্রমিক সমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তিনি আজ ১ মে বুধবার বিকেলে নগরীর নাছিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে মহান মে দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক দলের র‌্যালী ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

এতে প্রধান বক্তার বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, পহেলা মে শ্রমিকদের আত্মদান আর দাবী আদায়ের দিন। মাঠে-ঘাটে কলকারখানায় খেটে খাওয়া মানুষের এক গৌরবময় দিন। মে দিবস বিশ্বের মেহনতি জনতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ও সংহতির প্রতীক। মালিক শ্রমিকের মাঝে বৈষম্য থাকলে শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে মে দিবস মূল্যহীন। তিনি বলেন, সকল কর্মজীবী মানুষের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড়। তাদের অধিকার ও মর্যাদা রক্ষায় আমরা সর্বদা সচেতন ও দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। মেহনতি মানুষের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত করতে আমরা সংকল্পবদ্ধ। শ্রমিকের স্বার্থ রক্ষায় বিএনপি সব সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন- পহেলা মে শ্রমিকের ন্যায়সঙ্গত অধিকার আদায়ের সংগ্রামী চেতনার দিন। ভাগ্য বঞ্চিত মানুষের মনে এ দিনটি সুদীর্ঘকাল ধরে প্রেরণা জুগিয়ে আসছে। শ্রমিকদের শ্রমের ফলেই গড়ে ওঠেছে সভ্যতা ও সম্পদের পাহাড়। শ্রমজীবী মানুষের ঘামেই বাংলাদেশের অর্থনীতি। বর্তমানে শ্রমজীবী মানুষের ডাল-ভাত খেয়ে পরিবার নিয়ে বেঁচে থাকার অধিকার নেই। তাই শ্রমিক শ্রেণীর অধিকার ও ন্যায় সঙ্গত মজুরী প্রদানে মালিক পক্ষকে এগিয়ে আসতে হবে। মালিক শ্রমিক সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করে শ্রমিকদের শোষণ-বঞ্চনার অবসান ঘটাতে হবে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি শ.ম.জামাল’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত র‌্যালী পূর্ব সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিকদল কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক শেখ নুরুল্লাহ বাহার, উপদেষ্টা শামসুল আলম।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শাহেদ বক্স, হকার্স বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল বাতেন, সহ-দপ্তর সম্পাদক মো: ইদ্রিস আলী, চট্টগ্রাম মহানগর শ্রমিক দলের সভাপতি তাহের আহমদ, বিভাগীয় শ্রমিক দলের সহ-সভাপতি কামাল পাশা, চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা শ্রমিক দলের সভাপতি শাহ নেওয়াজ চৌধুরী মিনু, রেলওয়ে শ্রমিক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম.আর মনজু, চট্টগ্রাম মহানগর শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম সরকার, বিভাগীয় শ্রমিক দলের প্রচার সম্পাদক শফিকুর রহমান মজুমদার, নগর বিএনপির সদস্য শাহেদা বেগম, নগর যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান টিপু, শ্রমিক দলনেতা আবু বক্কর ছিদ্দিক, মো: আবু ছিদ্দিক, মুজিবুর রহমান, ডা: মহসীন খান তরুণ, সৈয়দ নাছির উদ্দিন, মো: হাশেম, আবু সৈয়দ হারুন, মো: জসিম মিয়া, মো: শহিদ, মো: ফরিদ, মো: হাসিবুর রহমান বিপ্লব, মহিউদ্দিন রনি, নজরুল ইসলাম, আব্দুল মান্নান, আলতাফ হোসেন, আতিকুর রহমান, আবু হেনা, ফজলুল হক জাবেদ, অপু সিংহ, আমেনা বেগম, জান্নাতুল ফেরদৌস বিথী, লাকি আক্তার, নার্গিস আলম, ঝুনু আক্তার প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে মহান মে দিবসের এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী নাছিম ভবন থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক পদক্ষিণ করে পুনঃরায় দলীয় কার্যালয় এসে শেষ হয়।

বিএম/রাজীব..