শুলকবহরে ১৮টি ক্যামেরায় মনিটরিং হবে চার সড়ক : উদ্বোধনে মেয়র

চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রাম নগরীর অপরাধপ্রবণ ও ঘটনাবহুল এলাকাগুলো একে একে আনা হচ্ছে প্রশাসনের আওতায়। আসন্ন রমজানের আগেই জনবহুল নগরীতে সম্মানিত নগরবাসীর নিরাপত্তা দিতে সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ।

স্বনামধন্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান কেএসআরএমসহ বিভিন্ন সংস্থা এক্ষেত্রে সহযোগীতার হাত বাড়িয়েছে প্রশাসনকে। নগরজুড়ে প্রায় প্রতিটি থানা এলাকায় বসানো হচ্ছে হাই রেজুলেশনের ক্লোজ সার্কিট টেলিভিশন (সিসিটিভি) ক্যামেরা। এসব সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে আসন্ন রমজানে এলাকার যানজট নিরসনসহ ট্র্যাডিশনাল অপরাধ নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি ব্যক্তি ও বাণিজ্যিক নিরাপত্তায় কার্যকরী ভূমিকা রাখবে।

সর্বশেষ নগরীর পাঁচলাইশ থানা এলাকা শুলকবহরের চারটি সড়কে সার্বক্ষনিক মনিটরিংয়ের জন্য বসানো হয়েছে ১৮টি হাই রেজুলেশনের ক্লোজ সার্কিট টেলিভিশন (সিসিটিভি) ক্যামেরা। শুলকবহর মহল্লা সমাজ কল্যাণ সমিতির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ওয়ার্ডের আবদুল হামিদ রোড, হাজী আবদুল লতিফ রোড- ১ ও ২ এবং হামদু মিয়া সড়কে ১৮টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়।

শনিবার (৫ মে) সন্ধ্যায় ক্যামেরা স্থাপন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। শুলকবহর মহল্লা সমাজ কল্যাণ সমিতির প্রধান উপদেষ্টা আ জ ম নাছির উদ্দিন বাটন প্রেসের মাধ্যমে স্থাপিত ক্যামেরাগুলোর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

পরে শুলকবহর মহল্লা সমাজ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি গোলাম মনসুরের সভাপতিত্বে আয়োজিত সংক্ষিপ্ত সভায় অতিথিরা এসব সিসি ক্যামেরা স্থাপনের ফলে এলাকার সাধারণ জনগণের জননিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে বলে আশা প্রকাশ করেন। সভায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ মোরশেদ, ওসি আবুল কাসেম ভুঁইয়া, সংরক্ষিত কাউন্সিলর জেসমিন পারভীন জেসি, শুলকবহর মহল্লা সমাজ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহাজান, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন তারুণ্যের সভাপতি আবদুর রশীদ লোকমান, সমাজ কল্যাণ সমিতির উপদেষ্টা আবুল হাসেমসহ এলাকার সম্মানিত গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা বক্তব্য রাখেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা সাহাজান সূফি, সমাজ কল্যাণ সমিতির সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী, মো. আইয়ুুব, মোহাম্মদ সোহরাওয়ার্দী, যুগ্ম সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান সম্রাট, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক খোরশেদ আলম টিটু, অর্থ সম্পাদক হাজী আরমান সুফি, সদস্য রাজিবুল ইসলাম হিরা, আবু তাহের, মোহাম্মদ হোসেন আহমেদ, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম আকাশ, মোহাম্মদ বকতিয়ার, আইয়ুব চৌধুরী প্রমুখ।

ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম নগরীর বেশ কয়েকটি থানা এলাকায় বসানো হয়েছে এসব সিসি ক্যামেরা। গত মঙ্গলবার ৩০ এপ্রিল বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্দর থানা এলাকাকে আনা হয়েছে সিসি ক্যামেরার আওতায়। সিসি ক্যামরা স্থাপনে সম্পূর্ণ আর্থিক সহায়তা করছে শিল্প প্রতিষ্ঠান কেএসআরএম। বন্দর এলাকায় শহীদ মুন্সি ফজলুর রহমান অডিটোরিয়ামে বন্দর থানার অধীনে ওয়ার্ডগুলোতে স্থাপিত সিসি ক্যামরা কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রেপলিটন পুলিশ কমিশনার মাহবুবুর রহমান।

বিএম/রাজীব সেন..