পদ্মা সেতুর ১৮০০ মিটার দৃশ্যমান

শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা প্রান্তে পদ্মা সেতুতে ১২তম স্প্যান বসানো হয়েছে। এর মধ্য্য দিয়ে সেতুর ১৮০০ মিটার দৃশ্যমান হলো।

সোমবার (৬ মে) দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে সেতুর ২০ ও ২১ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যানটি বসানো হয়।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল কাদের মুরাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আগে সকালে ধূসর রঙয়ের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ও ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি নিয়ে তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ভাসমান ক্রেনটি রওনা করে।

শুক্রবার (৩ মে) স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা থাকলেও ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র কারণে তা বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা।

পদ্মাসেতু সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, পদ্মা সেতুর স্প্যানটি সকাল ৯টা ১৯ মিনিটের দিকে যাত্রা শুরু করে।

২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতু। এরপর একে একে বসে মোট ১১টি সেতু। এরপর আজ দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের সময় ২০ ও ২১ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয় ১২তম স্প্যানটি।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল সেতুতে মোট ২৯৪টি পাইল আছে, যার মধ্যে নদীতে আছে ২৬২টি। ২৯৪টি পাইলে মোট পিলার রয়েছে ৪২টি। পিলারগুলোতে মোট স্প্যান বসবে ৪১টি।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সেতু নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

বিএম/রনী/রাজীব