রমজানে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি ধর্মপ্রাণ মুসলমানের ইবাদত বন্দেগীতে বাঁধা-সুজন

চট্টগ্রাম মেইল : রমজানে পঁচা, বাসী ও ভেজাল পণ্য উৎপাদন, বিক্রয় ও পরিবেশন থেকে ব্যবসায়ীদের বিরত থাকার আহবান জানিয়েছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।

আজ ৬ মে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় দেশের অন্যতম বৃহত্তম পাইকারী ব্যবসা কেন্দ্র খাতুনগঞ্জে নাগরিক পদযাত্রায় ব্যবসায়িদের এ আহবান জানান তিনি।

নাগরিক পদযাত্রার প্রথম দিনে খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে সুজন বলেন, পবিত্র রমজান মাস সমাগত। এ মাস ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য ইবাদত বন্দেগীর মাস। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে, এ মাসকে কেন্দ্র করে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী ঘৃণ্য লাভের খেলায় মেতে উঠেছে। আমদানী মূল্য বৃদ্ধির নামে কোন কারণ ছাড়াই বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ব্যবহার্য্য পণ্যের দাম। পাইকারী বাজারের দামের সাথে খুচরা বাজারের দামের কোন মিল নেই। একজন আরেকজনের অজুহাতে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে ফলতঃ ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণের ইবাদত বন্দেগীতে বাঁধা হয়ে দাড়াচ্ছে পণ্যের অহেতুক মূল্য বৃদ্ধি। তার উপর রয়েছে পঁচা, বাসী এবং ভেজাল খাদ্যের বিড়ম্বনা। এ বিড়ম্বনা থেকে সাধারণ জনগণকে মুক্তি দিতে নাগরিক উদ্যোগ বদ্ধপরিকর।

সুজন বলেন, খাতুনগঞ্জের বেশীরভাগ ব্যবসায়ীগণ বনেদী ব্যবসায়ী পরিবারের সন্তান। এ বাজারের একটি ঐতিহ্য আছে। এক সময় সারা বাংলাদেশের পাইকারী মালামালের যোগান দিতো এ খাতুনগঞ্জ পাইকারী বাজারটি। তাই আমাদের নাগরিক উদ্যোগের প্রথম পদযাত্রাটি এ বাজার থেকেই শুরু করেছি। আমরা ব্যবসায়ীবৃন্দকে অনুরোধ জানাতে এসেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার একটি ব্যবসাবান্ধব সরকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সবসময়ই ব্যবসা বানিজ্যে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে আসছে। নিত্য নতুন ব্যবসা বানিজ্যের সম্প্রসারণেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক। তাই দয়া করে আপনারা পঁচা, বাসী ও ভেজাল পণ্য বিক্রয় ও পরিবেশন থেকে বিরত থাকবেন। অযথা পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করে জনসাধারনকে কষ্ট দিবেন না। তাছাড়া কেউ পঁচা, বাসী ও ভেজাল পণ্য উঃপাদন, বিক্রয় কিংবা পরিবেশন করলে স্থানীয় প্রশাসনকে জানানোর জন্য সুজন ব্যবসায়ীদের নিকট আহবান জানান।

তিনি আরো বলেন, প্রতিদিনই নগরীর কোথাও না কোথাও ভেজাল, নকল ও মেয়াদোত্তীর্ণ পন্য জব্দ করছে জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সহ আইন শৃংখলা বাহিনী। আইন শৃংখলা বাহিনীর জোর তৎপরতার কারণে অসাধু ব্যবসায়ীরা প্রতিনিয়তই তাদের অবস্থান পরিবর্তন করছে। এক সময় নির্জন স্থানে গুদাম ভাড়া নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীরা ভেজাল পণ্য উৎপাদন কিংবা পরিবেশন করতো। এখন তারা ফ্ল্যাট কিংবা অভিজাত এলাকায় তাদের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে জনগনকেও সজাগ থাকার আহবান জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি বিএসটিআই বাজার থেকে নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করে ভোজ্য তেলসহ বেশকিছু ব্র্যান্ডের নিম্নমানের পণ্য চিহ্নিত করেছে যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য ভীষন ক্ষতিকর। বিভিন্ন নামী দামী ব্র্যান্ডও নিম্নমানের পণ্য বিক্রয়ের সাথে জড়িত। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে এখনো ঐসব পণ্য বাজারে বিক্রয় করা হচ্ছে। তিনি অতিসত্বর বিভিন্ন বাজার থেকে বিএসটিআই পরীক্ষায় নিম্নমানের প্রমানিত ভোজ্যতেলসহ সকল প্রকার পণ্য প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কোম্পানীর প্রতি আহবান জানান। নচেৎ এসব পণ্য বাজার থেকে জব্দ করে ধ্বংস সহ সংশ্লিষ্ট কোম্পানী সিলগালাকরণ, ভেজাল পণ্য উৎপাদকারী ও পরিবেশনকারীদের নাম এবং সামাজিক পরিচয় গণমাধ্যমে প্রকাশ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানান।

সুজন আগামী ৮ মে বুধবার সকাল ১১ টায় রেয়াউদ্দিন বাজারে নাগরিক উদ্যোগের দ্বিতীয় পদযাত্রার কর্মসূচী ঘোষনা করেন এবং নাগরিক উদ্যোগের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানান।

প্রথম দিনের নাগরিক পদযাত্রায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ৩৫নং বক্সিরহাট ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক সওদাগর, রাজনীতিবিদ হাজী মোঃ ইলিয়াছ, সংগঠনের সদস্য সচিব হাজী হোসেন কোম্পানী, আব্দুর রহমান মিয়া, এজাহারুল হক, মোঃ নিজাম উদ্দিন, হাফেজ মোঃ ওকার উদ্দিন, মোঃ শাহজাহান, মোঃ জানে আলম, জাহেদ আহমদ চৌধুরী, মোঃ সাইফুল ইসলাম, আবুল কালাম আবু, সমীর মহাজন লিটন, সোলেমান সুমন, মোঃ সাইফুল্লাহ আনছারী, শেখ মামুনুর রশীদ, জাহাঙ্গীর আলম, স্বরূপ দত্ত রাজু, রকিবুল আলম সাজ্জী, অঞ্জন দাশ, আব্দুল মালেক, শুভ ঘোষ, মনিরুল হক মুন্না, আজম আলী চৌধুরী জুয়েল প্রমূখ।

বিএম/রাজীব…