দীর্ঘদিনের মান-অভিমান থেকে বিএনপির সঙ্গ ত্যাগ

বিএনপির সঙ্গে ২০ বছর ধরে চলা রাজনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি)। দলটির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিভ রহমান পার্থ সোমবার বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটছাড়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি জোটছাড়ার বেশ কিছু কারণ উল্লেখ করেছেন। পাশাপাশি পার্থের বক্তব্যেও ফুটে উঠেছে জোটছাড়ার নেপথ্য কারণ।

বিএনপি জোটের সঙ্গ ছিন্ন করার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে আন্দালিভ রহমান পার্থ বলেন, বিএনপির রাজনীতি ঐক্যফ্রন্টমুখী হয়ে পড়েছে। ২০ দলের গুরুত্ব তাদের কাছে আছে বলে মনে হচ্ছে না। যেখানে আমাদের গুরুত্বই থাকছে না সেখানে আমাদের থেকে লাভ কী?

তিনি বলেন, আমরা জোট থেকে বেরিয়ে এসেছি। নতুন কোনো জোটে যাওয়ার পরিকল্পনা নেই। আমরা স্বতন্ত্রভাবে এখন দল গোছানোর কাছ শুরু করব।

বিএনপি জোটের সঙ্গ ছিন্ন করার প্রধান কারণ হিসেবে আন্দালিভ রহমান পার্থ গণমাধ্যমকে বলেন, ২০ দলের গুরুত্ব বিএনপির কাছে আছে বলে মনে হচ্ছে না। যেখানে আমাদের গুরুত্বই থাকছে না সেখানে আমাদের থেকে লাভ কী?

গুরুত্ব কমে যাওয়ার ব্যাখ্যায় পার্থ বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনকে আমরা নজিরবিহীন কারচুরির নির্বাচন বলেছি। দেশবাসীও তা দেখেছে। সেই নির্বাচনে জয়ী বিএনপির সংসদ সদস্যরা জোটসঙ্গীদের না জানিয়ে শপথ নিয়ে নিলেন। এটি আমাদের বিস্মিত করেছে।

পার্থ মনে করেন, এর ফলে ওই নির্বাচনকে প্রত্যাখ্যান করার নৈতিক অধিকার ২০-দলীয় জোট হারিয়ে ফেলেছে।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপি ড. কামালের হোসেনের নেতৃত্ব জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্তর্ভুক্ত হয়। এই জোট গঠনের পর থেকেই বিরোধী দলের রাজনীতির সুযোগ অনেকখানি কমে গেছে বলে মনে করেন পার্থ। পরবর্তী সময় সংহতি আর সহমত দেয়া ছাড়া ২০-দলীয় জোটের আর তেমন কোনো কাজ ছিল না বলে জানান পার্থ। তিনি আরও জানান, গত সাত মাস ধরে ২০ দলের কোনো কর্মকাণ্ড নেই।

বিজেপি এখন সংগঠন গোছাবে। ‘বিজেপি নিবন্ধিত একটি রাজনৈতিক দল। ২০০১ সালে সংসদে তাদের এমপি ছিল, ২০০৮ সালেও ছিল। এখন বিজেপি নিজেদের দল গোছাবে’-যোগ করেন দলটির চেয়ারম্যান।

জোটের বাইরে গিয়ে বিজেপির রাজনীতি কতটা সহজ ও দৃশ্যমান হবে এমন প্রশ্নে দলটির চেয়ারম্যান বলেন, ‘এখানে সহজ বা কঠিনের প্রশ্ন আসে না। আমরা আমাদের কাজ করতে থাকব, জনগণ দেখবে আমরা যদি তাদের কথা বলি তারা আমাদের পাশে থাকবে, না হলে থাকবে না।’

ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে পার্থ বলেন, না সেই সম্ভাবনা নেই।

২০-দলীয় জোট ত্যাগের বিজেপির মহাসচিব আবদুল মতিন সাউদ বলেন, ২০-দলীয় জোটের শরিক হলেও বিভিন্ন সিদ্ধান্তে বিএনপি আমাদের পাশ কাটিয়ে গেছে। জোটের চেয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দিকেই তারা বেশি মনযোগী। বিএনপি সংসদে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। অথচ তারা সংসদে গেল। কিন্তু এ বিষয়ে ২০-দলীয় জোটের সঙ্গে কোনো আলোচনাও হয়নি। অথচ আমরা জোটবদ্ধভাবে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। এসব অবহেলার কারণে জোটছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

১৯৯৯ সাল থেকে বিএনপির জোটসঙ্গী বিজেপি। ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট যখন ভেঙে যাওয়ার উপক্রম, তখন ঐক্য টিকিয়ে রাখার মুখ্য ভূমিকা রাখেন বিজেপির বর্তমান চেয়ারম্যান পার্থের বাবা নাজিউর রহমান মঞ্জুর। পরে তিনি মারা যাওয়ার পর পার্থ দলের চেয়ারম্যান হন। তিনি বিএনপির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাজনীতি করেন। বিএনপির চরম সংকটময় মুহূর্তেও পার্থ জোট ছাড়েননি।

কিন্তু এবার দীর্ঘদিনের মান-অভিমান থেকে বিএনপি জোটছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন পার্থ।

বিএম/রনী/রাজীব