ফৌজদার হাটে ২ মাসে অর্ধকোটি টাকার অবৈধ কাঠ জব্দ : আটক ৯

চট্টগ্রাম মেইল : চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগের আওতাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফৌজদারহাট ফরেস্ট চেক স্টেশনে গত দুই মাসে অর্ধকোটি টাকা মুল্যের অবৈধ কাঠ জব্দ করা হয়েছে। একই সময়ে ১০টিরও বেশি অবৈধ কাঠবাহী যানবাহন এবং ৯ কাঠ চোরাচালানীকে আটক করে বন আইনে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। বন বিভাগের ফৌজদার হাট ফরেস্ট চেক স্টেশন কর্মকর্তা মোঃ আরিফুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রাম নগরী ও জেলাসহ আশেপাশের বিভিন্ন উপজেলা থেকে অবৈধ কাঠ পাচার বন্ধে ধারাবাহিকভাবে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে বন বিভাগের একাধিক টিম। এর মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক পথে অবৈধ কাঠ পাচার বন্ধে স্থাপিত ফৌজদার হাট ফরেস্ট চেক স্টেশনে গত ১২ এপ্রিল থেকে ৯ মে পর্যন্ত দুই মাসেরও কম সময়ে অর্ধকোটি টাকা মুল্যের সেগুন গামারীসহ বিভিন্ন প্রজাতীর অবৈধ কাঠ আটক করতে সক্ষম হয়েছে।

ফৌজদার হাট স্টেশন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম জানান, অবৈধ কাঠ পাচার প্রতিরোধ চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তা (ডিএফও) বখতেয়ার নুর সিদ্দিকীর নির্দেশনায় কঠোর অবস্থানে রয়েছে বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর ফলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অবৈধ কাঠ পাচার শুণ্যের কোটায় নামিয়ে আনতে সক্রিয় রয়েছে ফৌজদারহাট চেক স্টেশন। এই স্টেশনে গত ২ মাসে অবৈধ কাঠ পাচারে নিয়োজিত কাভার্টভ্যান, ট্রাক, পিকআপ ভ্যানসহ বিভিন্ন ধরনের ১০টিরও বেশি যানবাহন আটক করে অর্ধকোটি টাকার অবৈধ কাঠ জব্দ করা হয়।

এ ছাড়া কাঠ পাচারে নিয়োজিত ৯ জন আসামীকে আটক করে তাদের বিরুদ্ধে বন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অবৈধ যানবাহন আটকের মাধ্যমে আদালতের মাধ্যমে জরিমানা আদায় করে বিপুল অংকের বন রাজস্ব আয় করা সম্ভব হয়েছে বলে জানান আরিফুল ইসলাম।

চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তা বখতেয়ার নুর সিদ্দিকী জানান, অবৈধ কাঠ পাচার বন্ধে সকল স্তরের বন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সার্বক্ষনিক অনুসন্ধান এবং অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে চট্টগ্রাম নগরী এবং চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হয়ে যেকোন ধরনের অবৈধ কাঠ পাচার বন্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে। চলমান এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা নিশ্চিত করেন।

বিএম/রাজীব..