রংপুরে ঈদ পোশাক পরকীয়ার চাহিদা বেশী

    রংপুর প্রতিনিধি : পরকীয়া শব্দটির সাথে ইতিপূর্বে কমবেশী প্রাপ্ত বয়স্করা পরিচিত থাকলেও এবার ব্যাপক ভাবে পরকীয়া শব্দটির সাথে পরিচিত হয়ে উঠেছে টিনএজ তরুনীরা। তা অন্য কোন ভাবে নয়, ঈদের পোশাকের নাম পরকীয়ার সুবাদে।

    আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নানান রঙ্গের নানা ধরনের দেশীয় পোশাকের সাথে প্রতিযোগিতা করে বাজার দখল করেছে ভারতীয় পোশাক। কিরন মালা, ঝিলিক, বাহুবলী এর পর এবার বিপনী বিতান গুলো ছেয়ে গেছে পরকীয়া নামের পোশাকে। নামের কারণে আগ্রহ ভরে রংপুরের তরুনীরা পরকীয়া নামের পোশাক বেছে নিচ্ছে।

    তরুনীদের পাশাপাশি তরুনরাও তার প্রিয় জনের জন্য এ পোশাকটি তালাশ করছে। চাহিদার সুযোগে ব্যবসায়ীরাও বেশি দাম হাকছেন পোশাকটি জন্য। শ্রেণি ভেদে পোশাক টি ৩ থেকে ১০ হাজার টাকা দরে বিক্রি করছে।

    রংপুর মহানগরীসহ জেলার আট উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার গুলোতে দখল করেছে অন্যান্য দেশীয় পোশাক এর পাশাপাশি ভারতীয় পরকীয়াসহ বেশ কিছু পোশাক।

    তবে নামটির ব্যাপারে অনেক আপত্তি তুলেছেন। অনেকে মন্তব্য করেছেন এমন নাম রাখা ঠিক হয়নি। পাশের দেশে এ নামটি মানান সই হলেও আমাদের দেশে এ নামটি বে-মানান।

    কাউনিয়া রেলবাজার জামে মসজিদের পেশ ইমাম আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুছ বলেন, এধরনের নাম পরিহার করলে ভাল হতো।

    কাপড় ব্যবসায়ী নিতাই, রাম প্রসাদ বলেন ক্রেতারা যখন পরকীয় নাম ধরে ড্রেস দেখতে চায় তখন অন্য মহিলা ক্রেতারাও বিব্রত বোধ করেন। তবুও ব্যবসার জন্য রাখতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে রংপুরের ঈদের কাপড়ের বাজার এবার পরকিয়ার দখলে বলে মন্তব্য করেছেন কাপড় ব্যবসায়ী রোমন ও নয়ন মিয়া।

    বিএম/এসআর/এমআর