পাস্তুরিত দুধে জীবাণু: অধ্যাপক ফারুকের পরীক্ষার সত্যতা মিললো

হাইকোর্টের নির্দেশনায় পাস্তুরিত দুধের ১১টি নমুনা পরীক্ষা করে ক্ষতিকারক জীবাণুর অস্তিত্ত্ব পেয়েছে বাংলাদেশ শিল্প বিজ্ঞান গবেষণা সংস্থা-বিসিএসআইআর।

ক্ষতিকর জীবাণু পাওয়ায় ১০টি পাস্তুরিত দুধ কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করেছে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

বুধবার বিকেলে, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের ইন্সপেক্টর কামরুল ইসলাম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

তিনটি প্রতিষ্ঠানের রিপোর্ট হাইকোর্টে দাখিলের পরে ১০টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করলো নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

এর আগে, গত ১৪ই জুলাই বিএসটিআইয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত কোম্পানিগুলোর পাস্তুরিত দুধ পৃথক চারটি সংস্থার ল্যাবে পরীক্ষা করে এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। দুধে অ্যান্টিবায়োটিক, ব্যাকটেরিয়া ও ফরমালিনের পাশাপাশি অন্য কোনো ক্ষতিকর উপাদান আছে কী-না তা নিরূপণ করতেও বলা হয়।

গত ২৫শে জুন বিএসটিআইয়ের আইনজীবী আদালতে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। সেদিন তিনি বলেন, ১৪টি কোম্পানির পাস্তুরিত দুধে আশঙ্কাজনক বা ক্ষতিকর কোনো কিছু পাওয়া যায়নি।

তবে, একই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক আ ব ম ফারুক এক সংবাদ সম্মেলনে গবেষণা প্রতিবেদন তুলে ধরেন।

প্রতিবেদনে, সবগুলো পাস্তুরিত দুধে ফরমালিন এবং তিনটির নমুনায় ডিটারজেন্টের উপস্থিতির বিষয়টি উঠে আসে।

বিএম/এমআর