মেয়ে সেজে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ, র‍্যাবের হাতে ছাত্রলীগ নেতা আটক

ফেসবুকে তরুণী সেজে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক যুবককে অপহরণ করে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছেন ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি খালেদুর রহমান। এমন অভিযোগে তাকে আটক করেছে র‍্যাব।

সূত্র জানায়, ৪ মাস আগে অপহরণকারী চক্রের সদস্য আলীম ফেসবুকে একটি ভুয়া আইডি খুলে মেয়ে সেজে খাগড়াছড়ির আশরাফুলের সঙ্গে প্রেমের অভিনয় শুরু করে। গত ১৪ (আগস্ট) আশরাফুলকে ঝিনাইদহে এসে দেখা করতে বলে আলীম।

এদিন আশরাফুল ঝিনাইদহের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে আসলে তাকে অপহরণ করে ব্যাপারিপাড়ার একটি ছাত্রাবাসে অবরুদ্ধ করে রাখে চক্রটি। পরে ফোন করে আশরাফুলের পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে তারা। ছেলেকে ফিরে পেতে পরিবারের লোকজন বিকাশের মাধ্যমে ৬৮ হাজার টাকা পাঠায়।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) ভোরে শহরের ব্যাপারিপাড়ার একটি ছাত্রাবাস থেকে অপহৃত যুবককে উদ্ধার করেছে র‌্যাব। এসময় অপহরণকারী চক্রের অন্যতম সদস্য খালেদুর রহমানকে হাতেনাতে আটক করেন তারা। শুক্রবার বিকেলেই আশরাফুলকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা প্রস্তুতি চলছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৬ এর ঝিনাইদহ ক্যাম্প কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, অপহৃত যুবকের নাম আশরাফুল। তার বাড়ি খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলার থলিবাড়ী গ্রামে। আশরাফুলের অপহরণের বিষয়টি তার পরিবার আমাদের কাছে জানালে মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করি আমরা। ঘটনাস্থলে গিয়ে আশরাফুলকে উদ্ধার করি। টের পেয়ে অপহরণকারী চক্রের কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও ঘটনার মাস্টার প্ল্যানার ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি খালেদুর রহমান ও তার সঙ্গী শামীম আহম্মেদকে আটক করি।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদ জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে এবং অপহরণের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে খালেদুর রহমানকে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

বিএম/এমআর