চট্টগ্রামের নিমতলা হত্যাকান্ডের পেছনে পরকীয়া দায়ী

ইবেন মীরঃ চট্টগ্রামের নিমতলায় বাবা ও মেয়ে হত্যার পেছনে নিহতের স্ত্রীর পরকীয়া দায়ী বলে জানিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ। পাশের বাসার মাইন উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে মায়ের অবৈধ সম্পর্ক দেখে ফেলে শিশু কন্যা ফাতেমা খাতুন (৪)। বাবা বাসায় এলে এ সম্পর্কের কথা বলে দেবে বললে ওই শিশুকে হত্যা করে মা হাছিনা বেগম। পরে মাইন উদ্দিন ও হাছিনা বেগম মিলে স্বামী আবু তাহেরকেও হত্যা করে।

রোববার (২০ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় দামপাড়া পুলিশ লাইন্সে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম।

পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে গতকাল শনিবার সকাল ৮.৩০ থেকে ৯.৩০ এর মধ্যে যে কোন সময় বাবা ও মেয়েকে হত্যা করা হয়। এরই মধ্যে এই ঘটনায় মৃত আবু তাহেরের(৩৮) স্ত্রী হাছিনা বেগমকে(৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।অপর অভিযুক্ত মাইন উদ্দিন ঘটনার পর থেকেই পলাতক।আটক হাছিনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সে স্বীকার করে প্রতিবেশী মাইন উদ্দিনের(৪৫) সাথে অবৈধ সম্পর্কের কথা।

গতকাল শনিবার সকালে হাছিনা বেগম এবং মাইন উদ্দিনের মধ্যকার অবৈধ সম্পর্কের সময় তার মেয়ে ফাতেমা খাতুন(০৪) দেখে ফেলে এবং বাবাকে বলে দিবে বলাতে মাইন উদ্দিন এবং হাছিনা বেগম শিশুটির হাত পা চেপে ধরে। এই সময় হাছিনা বেগম নিজেই সন্তানের গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে এবং গলা কেটে হত্যা করে। হত্যা করার পর লাশ কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে। কিছুক্ষন পর আবু তাহের ঘরে ঢুকে মেয়ের লাশ দেখতে পেলে তাকেও গলায় রশি পেচিয়ে এবং পেটে ও মাথায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে গলা কেটে হত্যা করে।পলাতক মাইন উদ্দিনকে গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে ।এই ঘটনায় নিহত আবু তাহেরের বড় ভাই নুর আলম অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বাদী হয়ে বন্দর থানায় একটি মামলা করেন।

এর আগে গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বন্দর থানা পুলিশ এলাকার শাহ আলম ভবন নামের একটি বাসা থেকে মো. আবু তাহের এবং তার মেয়ে ফাতেমার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো ছুরিও উদ্ধার করা হয়েছে।