দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় বেতনের দাবিতে পাটকল শ্রমিকদের বিক্ষোভ, পুলিশের গুলিতে এক ব্যক্তি নিহত

বাংলাদেশ মেইল ::

দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় বেতনের দাবিতে পাটকল শ্রমিকদের বিক্ষোভে পুলিশের চালানো গুলিতে সুরত আলী (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. তানজিমুল হক জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই সুরত আলীর মৃত্যু হয়। তার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছররা গুলির চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়া, আহত দুই জনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে ও একজনকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সুরত আলীর বাড়ি উপজেলার হুসনা গ্রামে। তার বাবার নাম মোহাম্মদ আলী। স্থানীয়রা জানান, পাটকলের পাশে সুরত আলীর চায়ের দোকান আছে। বেতন না দিয়েই কারখানা বন্ধ ঘোষণা করলে গতকাল বিকালে রূপালী বাংলা জুট মিলের শ্রমিকরা বিক্ষোভ শুরু করে। কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম আব্দুল লতিফ সন্ধ্যায় শ্রমিকদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। সে সময় শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং বেতন পরিশোধের দাবি জানায়। তাদের সঙ্গে স্থানীয় কিছু লোক যোগ দিয়ে কারখানায় ভাঙচুর চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে পুলিশ প্রথমে লাঠিপেটা এবং পরে টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

শ্রমিকরা বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গতকাল কর্তৃপক্ষ কারখানা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়। আমাদের বেতন হয় সপ্তাহ শেষ হলে। সে অনুযায়ী আমাদের তিন সপ্তাহের বেতন বকেয়া হয়েছে। বেতনের দাবিতে আমরা বিক্ষোভ শুরু করলে কর্তৃপক্ষ আলোচনায় বসে এক সপ্তাহের বেতন দিতে রাজি হয়। আমরা তিন সপ্তাহের বেতন চেয়েছি।

বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মো. নাসিম হাবিব বলেন, বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ওপর আক্রমণ করায় বাধ্য হয়ে প্রথমে লাঠিচার্জ ও পরে ৩ রাউন্ড টিয়ার সেল এবং শেষে ১২ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়। বিক্ষোভকারীদের হামলায় তিন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন।