রনিকে হত্যার হুমকিঃ ডা.ফয়সালের গ্রেফতার চেয়ে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে মানববন্ধন

চট্টগ্রাম মেইলঃ বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ ফয়সাল ইকবালের গ্রেফতার চেয়ে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত সোমবার (২২ জুন) ফোনালাপে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনিকে প্রকাশ্যে হত্যা করে লাশ ফেলে রাখার হুমকির প্রতিবাদে উক্ত মানববন্ধন আয়োজন করে চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসীন কলেজ ছাত্রলীগ।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিমের সভাপতিত্বে ও মহসীন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মামুন-পলাশের যৌথ সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য গাজী জাফরুল্লাহ, কোতোয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাসান মনসুর, নগর যুবলীগের সদস্য নুরুল আনোয়ার, সাবেক ছাত্রনেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরী।

বক্তারা বলেন, করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে আমরা চট্টগ্রামের বেহাল স্বাস্থ্যদশা নিয়ে প্রেসক্লাব সম্মুখে মানববন্ধন করে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছি। আমাদের আন্দোলন কখনো ডাক্তার সমাজের বিপক্ষে ছিল নাহ। কতিপয় পেশাজীবি যারা চট্টগ্রামের স্বাস্থখাতকে ভিন্নখাতে পরিচালনা করে এ শহরে লাশের মিছিল বসিয়েছে তাদের রুখে দিয়ে মানুষের মৌলিক অধিকার চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করাই ছিল আমাদের আন্দোলনের মূল উদ্দেশ্য। অথচ, এই প্রতিবাদের কারণে এ আন্দোলনের প্রতিবাদী যোদ্ধা নুরুল আজিম রনি’র লাশ ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন পেশাজীবি চিকিৎসক নেতা ফয়সাল ইকবাল। একজন পেশাদার খুনী ছাড়া এভাবে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি দেয়া অন্য কারো পক্ষে সম্ভব নয়। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং অবিলম্বে ফয়সাল ইকবালের গ্রেফতারের দাবী জানাচ্ছি।

হাসান মনসুর তার বক্তব্যে বলেন, চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য খাতকে জিম্মি করে ফয়সাল ইকবাল তার স্বভাবসুলভ মাস্তানি প্রদর্শন করেছে। ছাত্র অবস্থাতেও তিনি একাধিক হত্যা মামলার আসামী ছিলেন। এছাড়াও, সরকারের নির্দেশ অমান্য করে বেসরকারী হাসপাতালগুলো বন্ধ রেখে এই করোনাকালে চট্টগ্রামবাসীকে অবর্ণনীয় কষ্ট দিয়েছে। আমরা তার এই ঘৃণ্য কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম বিধায় আজ সে রনিকে হত্যার হুমকি দিল। কাল আমাকে দিবে। আমরা আইনশৃংখলা বাহিনীকে অনুরোধ জানাব চট্টগ্রামের স্বাস্থ্যখাত ধ্বংশের এই কুশীলবকে অতি দ্রুত গ্রেফতার করুন।

সভাপতির বক্তব্যে মাহমুদুল করিম বলেন, বেসরকারী হাসপাতালের মালিকদের শেল্টার দিয়ে চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে ফয়সাল ইকবাল এই করোনাকালে চট্টগ্রামের শতাধিক মানুষকে বিনা চিকিৎসায় হত্যা করেছে। তার এই মানবতাবিরোধী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় আজ সাহসী ছাত্রনেতা নুরুল আজিম রনিকে হত্যার হুমকি এসেছে। নুরুল আজিম রনির অপরাধ সে জনগনের পাশে থেকে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে চেয়েছিল। এই মহামারীতে জনগনকে বাঁচাতে ১০০ শয্যার আইসোলেশন সেন্টার করেছে। যেখানে বিনামূল্যে করোনা রোগীদের চিকিৎসা হচ্ছে। এতে তাদের ব্যবসায়িক ক্ষতি হচ্ছে। তাই ফয়সাল ইকবাল সিন্ডিকেট রনি’কে হত্যার মিশনে নেমেছে। আমরা চট্টগ্রামের ছাত্র সমাজ এই প্রেসক্লাব থেকে পরিষ্কার ভাষায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে বলতে চাই, অতিদ্রুত চট্টগ্রামের চিকিৎসা খাত জিম্মিকারী ফয়সাল ইকবালকে গ্রেফতার করে জনগনের মৌলিক অধিকার চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করুন।

এতে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য নাদিম উদ্দীন, আশেকানে ডিগ্রী কলেজ ছাত্র সংসদের জি.এস আমিনুল করিম, নগর ছাত্রলীগের সদস্য মিজানুর রহমান মিজান,বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা খুরশেদ আলম, মো আরিফ, তানভীর মেহেদী মাসুদ, শিহাব আলী চৌধুরী, জাহিদ হাসান সায়মন, নোমান চৌধুরী রাকিন,আরাফাত,মেহেদী হাসান ফয়সাল প্রমুখ।