চট্টগ্রামে কিট সংকটে বন্ধ হতে পারে নমুনা পরীক্ষা

বাংলাদেশ মেইল ::  

চট্টগ্রামের ল্যাবগুলোতে একটি টেস্ট কিটের বিপরীতে দুটি নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছিল গত কয়েকদিন ধরে। তারপরও  কিটের ঘাটতি দেখা দেয়ায় করোনার নমুনা পরীক্ষা সংকটের মুখে পড়েছে চট্টগ্রামে।

চট্টগ্রামের প্রধান তিনটি ল্যাবেই ইতোমধ্যে ফুরিয়ে এসেছে নমুনার টেস্টিং কিট। এসব ল্যাবে এখন পর্যন্ত যা কিট মজুদ রয়েছে, তাতে দু-একদিন পরীক্ষা চালানো যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

কিট সংকটের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে চাহিদা পত্র পাঠানো হয়েছে। একই সাথে কিট বুঝে নিতে রবিবার (কাল) প্রতিনিধি পাঠাতে নির্দেশনা দেয়া হয় সংশ্লিষ্ট ল্যাবগুলোকে। তবে নির্দিষ্ট সময়ে কিট না পাওয়া গেলে আগামী সোম-মঙ্গলবার থেকে নমুনা পরীক্ষা বন্ধ হয়ে যাওয়ার শঙ্কা আছে আছে বলে জানিয়েছেন ল্যাব সংশ্লিষ্টরা।

স্বাস্থ্য বিভাগের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কিট সমস্যা শুধু চট্টগ্রাম বিভাগেই নয়। পুরো বাংলাদেশের চিত্র এটি। মূলত জটিলতার কারণে কিট আমদানি বন্ধ থাকায় এ সমস্যায় পড়তে হয়েছে। যদিও বিকল্প হিসেবে ছোট ছোট লটে কিট আমদানি করছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চট্টগ্রামের প্রধান ল্যাব ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) ল্যাবে গতকাল (শুক্রবার) পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সর্বশেষ কিট সংখ্যা ছিল মাত্র ১০০টি। যা দিয়ে আজ (শনিবার) পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব। যদিও ল্যাব কর্তৃপক্ষকে রবিবার কিট সংগ্রহ করতে প্রতিনিধি পাঠাতে বলা হয়েছে। তবে এ দিন অন্যত্র থেকে ধারে কিট নিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন ল্যাব প্রধান ডা. শাকিল আহমেদ।

তিনি  বলেন, ‘কিট শেষ হওয়ার বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা রবিবার প্রতিনিধি পাঠাতে বলেছেন। তবে ওই দিন কিট না পেলে সোমবার থেকে পরীক্ষার কাজ চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে না। তাতে সোমবার থেকেই বন্ধ রাখতে হবে পরীক্ষার কাজ’।
একই অবস্থা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) ল্যাবেরও। সেখানেও কিট ফুরিয়ে এসেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে কর্তৃপক্ষের চাহিদাপত্র পাওয়ার পর শনিবার কিট সংগ্রহ করতে প্রতিনিধি পাঠাতে বলা হয় বলে জানান ল্যাবটির প্রধান এহসানুল হক কাজল। তিনি  বলেন, ‘শুরু থেকেই কিট সংকটের বিষয়টি লেগে আছে। প্রতি সপ্তাহ কিংবা ১৫দিন অন্তর গিয়ে কিট আনতে হচ্ছে। তবে শনিবার কিটের জন্য লোক পাঠানো হবে’। কিট পেলে তাতে সমস্যা হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
অন্যদিকে, পরীক্ষার বড় কেন্দ্র চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) ল্যাবেও কিট রয়েছে মাত্র ২৫০টি। যা দিয়ে দু-একদিন চালিয়ে গেলেও মঙ্গলবারের পর চালানো সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন ল্যাব কর্তৃপক্ষ।