করোনার প্রথম টিকা হিসেবে চূড়ান্ত ট্রায়ালে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন!

বাংলাদেশ মেইল :: 

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ঠেকাতে বিশ্বের গবেষকদের ঘুম নেই। টিকা আবিষ্কারে নির্ঘুম রাত পার করছেন অক্সফোর্ট বিশ্ববিদ্যালয়, লন্ডন ইম্পেরিয়াল কলেজের গবেষকরা৷   তবে করোনা প্রতিরোধে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ভ্যাকসিন পৃথিবীর প্রথম ‘টিকা’ হিসেবে চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথম গত শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিশ্বের পরীক্ষাধীন ভ্যাকসিনগুলোর মধ্যে অগ্রগতি বিবেচনায় শীর্ষে রয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনটি। ব্রিটিশ ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের তৈরি এই ভ্যাকসিনটি বৃহৎ ও মাঝারি পরিসরে এরই মধ্যে মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

সৌম্য স্বামীনাথম বলেন, মার্কিন কোম্পানি ‘মডার্নার তৈরি ভ্যাকসিনটিও উন্নতির দিক দিয়ে অ্যাস্ট্রাজেনেকার চেয়ে খুব দূরে নেই। এ প্রসঙ্গে সৌম্য স্বামীনাথম বলেন, ‘আমরা জানি যে, মডার্নার তৈরি ভ্যাকসিনটিও তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল শুরু করতে যাচ্ছে, সম্ভবত জুলাইয়ের মাঝামাঝি এবং সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিনটিও (অ্যাস্ট্রাজেনেকার থেকে) খুব বেশি দূরে নেই।’

প্রাথমিকভাবে অ্যাস্ট্রাজেনেকার লাইসেন্সকৃত সিএইচএডিওএক্সওয়ান এনকোভ-১৯ (ChAdOx1 nCoV-19) ভ্যাকসিনটি যুক্তরাজ্যে ১০ হাজার ২৬০ জন প্রাপ্তবয়স্ক ও শিশুকে দেওয়া হবে। এটি দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলেও পরীক্ষা করা হচ্ছে।

ভ্যাকসিনটি তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে ‘সিএইচএডিওএক্সওয়ান’ভাইরাস, যা মূলত সাধারণ সর্দি-কাশির দুর্বল ভাইরাস (অ্যাডেনোভাইরাস) হিসেবে পরিচিত। এটি শিম্পাঞ্জিকে সংক্রমিত করে। গবেষকরা এ ভাইরাসের জিনেটিক পরিবর্তন করেছেন, যাতে তা মানুষের ক্ষতি না করে।