সানডে টাইমস'র দাবি
কোভিড-এর মতো ভাইরাসটি ৭ বছর আগে উহানে প্রেরণ করা হয়েছিল

বাংলাদেশ মেইল ::

কোভিড-এর মতো ভাইরাসটি ২০১৩ সালে উহানে প্রেরণ করা হয়েছিল এমন দাবি করেছে বৃটিশ দৈনিক সানডে টাইমস।

সানডে টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয় সাত বছর আগে উওহান ইনস্টিটিউট অফ ভাইরাসোলজিতে প্রেরণ করা ভাইরাস নমুনাগুলি আমলে নেননি চীনা ল্যাব  -যা বিশ্বব্যাপী মহামারীর উৎস সম্পর্কে উত্তরহীন প্রশ্নের হাইলাইট করেছে।

সংবাদপত্রটি বলেছে, বিজ্ঞানীরা ২০১৩ সালে দক্ষিণ-পশ্চিমে চীনের ব্যাট-আক্রান্ত সাবেক তামার খনি থেকে ছয়জনের হিমায়িত নমুনা উহান ল্যাবকে  প্রেরণ করেছিলেন। ছয়জনের সবাই সেখানে ব্যাটের মল পরিষ্কার করে  নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিল।

তাদের মধ্যে তিনজন মারা গিয়েছিলেন।  এবং সম্ভবত মারা যাবার কারণ হ’ল ব্যাট থেকে করোনভাইরাস সংক্রমণ হয়েছিল।  সানডে টাইমস এ তথ্য জানায় , এমন এক মেডিসিন বিশেষজ্ঞের  বরাত দিয়ে যিনি সেখানে তত্ত্বাবধায়ক হিসাবে জরুরি বিভাগে কর্মরত পুরুষদের সাথে চিকিৎসা করেছিলেন।

ইউনান প্রদেশের একই খনিটি নিয়ে পরবর্তীতে উওহান ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজির ব্যাট উৎসের সারস-জাতীয় করোনারভাইরাস বিশেষজ্ঞ শি ঝেংলি গবেষণা করেছিলেন।  ডাক্তার শি, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির একটি গবেষণাপত্রে কোভিড -১৯-কে বর্ণনা করেছিলেন, এটি ২০১৩ সালে ইউনান-এ প্রাপ্ত র্যাটজি ১৩ নামে একটি করোনভাইরাস নমুনার মতো।

নিবন্ধে উদ্ধৃত মতবিরোধী বিজ্ঞানীদের মতে, নমুনাগুলির মধ্যে পার্থক্য বিবর্তনীয় দূরত্বের প্রতিনিধিত্ব করতে পারে। সানডে টাইমস জানিয়েছে যে উহান ল্যাব তার প্রশ্নের জবাব দেয়নি।

মে মাসে উওহান ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজির পরিচালক বলেছিলেন যে,  ল্যাবটিতে আরটিজি 13 ভাইরাসের কোনও লাইভ কপি নেই।  সুতরাং এটি ফাঁস হওয়া অসম্ভব হত। উওহানে শুরু হওয়া বৈশ্বিক প্রকোপের উৎস ল্যাবই ছিল বলে কোন প্রমাণ নেই। তবে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প মে মাসে দাবি করেছিলেন যে তিনি করোনা উৎসে উহান তত্ত্বের প্রমাণ দেখতে পেয়েছেন ।