করোনার টিকা হ্যাকিংয়ের অভিযোগ রাশিয়ার বিরুদ্ধে

বাংলাদেশ মেইল::

করোনা ভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের সঙ্গে জড়িতদের সতর্ক করেছেন যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও কানাডার নিরাপত্তা রক্ষাকারী কর্মকর্তারা। তারা অভিযোগ করেছেন করোনা টিকা নিয়ে যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করছে তাদেরকে টার্গেট করছে রাশিয়ার সাইবার ‘এক্টর’রা।

রাশিয়ার হ্যাকিং গ্রুপ ‘এপিটি২৯’ নামের এই গ্রুপটি করোনা ভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের বিস্তারিত তথ্য পাওয়ার জন্য চেষ্টা করছে।তারা নিজেদেরকে ‘দ্য ডিউকস’ অথবা ‘কোজি বিয়ার’ হিসেবেও পরিচয় দেয়। অনলাইন সিএনএন এ খবর দিয়েছে।

এতে বলা হয় বৃটিশ ন্যাশনাল সাইবার সিকিউরিটি সেন্টার (এনসিএসসি)-এর একটি পরামর্শ প্রকাশিত হয়েছে। তাতে রাশিয়ার এই হ্যাকিং গ্রুপটির কর্মকান্ড সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে। বলা হয়েছে, তারা যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও কানাডায় করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়ে গবেষণা করছে অথবা টিকা উৎপাদনের জন্য যারা কাজ করছে তাদেরকে টার্গেট করছে।

পরামর্শ বিষয়ক একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এপিটি২৯-এর হিংসাত্মক কর্মকান্ড চলছেই। তারা সরকার, কূটনীতিক, থিংকট্যাংক, স্বাস্থ্যসেবা ও এনার্জি খাতকে টার্গেট করেছে মূল্যবান বুদ্ধিবৃত্তিক (ইন্টেলেকচুয়াল) সম্পদ চুরি করতে।

উল্লেখ্য, রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে যুক্ত দুটি হ্যাকিং গ্রুপের একটি হলো কোজি বিয়ার। ধারণা করা হয়, ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটির ইন্টারনাল সিস্টেম হ্যাক করেছিল এরাই।

কিন্তু বৃহস্পতিবারই প্রথম করোনাভাইরাস ইস্যুতে সাইবার হামলার সঙ্গে তাদের জড়িত থাকার কথা ঘোষণা করা হলো। ওদিকে করোনা ভাইরাস ইস্যুতে যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করছে তাদেরকে এরই মধ্যে সতর্ক করেছে যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও কানাডা।

এর আগে এপ্রিলে সিএনএন মার্কিন সরকারের বিভিন্ন এজেন্সি ও মেডিকেল ইনস্টিটিউশনের বিরুদ্ধে সাইবার হামলার বিষয়ে রিপোর্ট করে। ওই সময় কর্মকর্তারা বলেছিলেন হাসপাতাল, গবেষণাগার, স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী এবং ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলো আক্রমণের মুখে রয়েছে।

এ বিষয়ে জানেন এমন একজন কর্মকর্তা এর আগে বলেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব হেলথ এন্ড হিউম্যান সার্ভিসেস প্রতিদিন এমন অনেক হামলার মুখে পড়ছে। এক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে দায়ী করা হয় রাশিয়া ও চীনকে।