সরকারের ছত্রছায়ায় সাহেদ-সাবরিনার উত্থান: রিজভী

বাংলাদেশমেইল: করোনা মহামারির মধ্যে চিকিৎসার নামে প্রতারণা আর জালিয়াতির ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া সাহেদ-সাবরিনার উত্থান সরকারের নীতির কারণেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, মানুষ মরে মরুক, আমি (সরকার) তো ঠিক আছি, জনগণ চুলায় যাক, আমি তো ঠিক আছি- এটা হচ্ছে এই সরকারের নীতি। এই নীতি কারণেই আজকে সাহেদের উত্থান হয়েছে, সাবরিনাদের উত্থান হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি একথা বলেন। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, হাসপাতালে আইসিইউ নেই, বেড নেই, ভেন্টিলেটর নেই, হাসপাতালে মাস্ক নেই। আক্রান্ত রোগী রাস্তায় মরছে, অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে মরছে। সরকারি হাসপাতাল সেগুলো নরকে পরিণত হয়েছে। প্রাইভেট হাসপাতালের একজন রোগীর ৯ লাখ টাকা বিল হয়েছে। কেউ যেনো কিছু দেখার নেই।

শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি মওকুফের দাবি জানিয়ে রিজভী বলেন, আজকে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা টিউশন ফি কমানোর দাবি জানিয়েছেন। দেশের সকল স্কুল-মাদরাসায় টিউশন ফি একেবারে বাতিল করে দিতে হবে। এটাই হবে এই মুহূর্তে সবচাইতে মানবিক কাজ।

তিনি বলেন, একে তো ছেলে-মেয়েরা স্কুলে যেতে পারছে না, তার উপরে তাদেরকে টিউশন ফি দিতে হবে। এর প্রতিবাদে অভিভাবকরা যে আন্দোলন করছেন সেটাতে সরকার কোনো কর্ণপাত করছেন না। কারণ সরকার স্কুল-কলেজ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিয়েছে। শুধু লুটপাট আর দুর্নীতি করতে মেগা প্রজেক্ট করতে ব্যস্ত।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতার কঠোর সমালোচনা করে মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ও দলের যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল বলেন, সরকারের ভুলের কারণে করোনাভাইরাস মহামারিতে রূপ নিয়েছে। তাই করোনাক্রান্ত মৃত্যুকে হত্যা বলবো।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে ‘করোনা পরীক্ষার জাল সনদ বিক্রি, অর্থ ও মানব পাচার এবং মহাদুর্নীতির প্রকোপ বৃদ্ধির প্রতিবাদে’ এই মানববন্ধনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশারের পরিচালনায় যুবদল, শ্রমিকদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদল, মহিলাদলের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।

 

বাংলাদেশমেইল/এসএস