বান্দরবান সদর থানার ওসিসহ চারজনকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ

????????????????????????????????????

বাংলাদেশ মেইল :: 

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম চৌধুরীসহ ৪ জনকে স্বশরীরে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছেন সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুজাহিদুর রহমান। বাকি ৩ জন হলেন, সেকেন্ড অফিসার এস আই বিপুল চন্দ্র রায়, ডিউটি অফিসার এস আই মুজিবুর রহমান, এস আই প্রণব কান্তি দাশ।

গেল ১০ই জুলাই বান্দরবান জেলা জজ কোর্টের কর্মচারী মেহ্লা অং মারমা ভার্চুয়াল আদালতের চলমান কার্যক্রমে সহায়তার জন্য বিচারকের বাসায় যাওয়ার সময় পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। মেহ্লা অং মারমা তার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে তার আটকের বিষয়টি অবহিত করলে তিনি থানায় যোগাযোগ করেও তাকে মুক্ত করতে পারেননি। পরে আদলতের তাৎক্ষণিক নির্দেশে থানার সেকেন্ড অফিসার বিপুল চন্দ্র রায়সহ সংশ্লিষ্টরা মেহ্লা অং মারমাকে নিয়ে স্বশরীরে আদালতে হাজির হন।

আদালত উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আটকৃত মেহ্লা অং মারমাকে বেআইনি ভাবে আটক করা হয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হওয়ায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়। একইসাথে আদালত আদেশে বলেছেন,অভিযুক্তরা মেহ্লা অং মারমা একজন সরকারি কর্মচারী এবং সরকারি দায়িত্ব পালনরত অবস্থা সম্পর্কে জানা সত্ত্বেও সরকারি দায়িত্ব পালনে বাধা প্রদান করা করেছেন।

এ ঘটনায় ওসিসহ অভিযুক্ত চারজনের বিরুদ্ধে কেন আইনানুগ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবেনা উল্লেখ করে ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে কারণ দর্শানোর জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। কিন্তু অভিযুক্তরা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের কোন ব্যাখ্যা প্রদান করেননি। যা আদালতের আদেশ অবমাননার শামিল।

এদিকে বুধবার (২২ জুলাই) অভিযুক্ত চার কর্মকর্তাকে আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে আদালতে উপস্থিত হয়ে কারণ দর্শানোর জন্য পুনরায় নির্দেশ প্রদান করেন। তারা নির্দিষ্ট সময়ের ভিতর উপস্থিত না হলে কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আদালতের আদেশ অবমাননার জন্য শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও আদেশে বলা হয়। আদেশের কপি ডিআইজি চট্টগ্রাম রেঞ্জ এবং এসপি বান্দরবান বরাবর প্রেরণ করা হয়।