ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদন
উদার মানবিক ছিলেন পাঠাও-এর ফাহিম

বাংলাদেশ মেইল ::

নিউ ইয়র্কের প্রযুক্তি জগতে খুব একটা পরিচিত ছিলেন না বাংলাদেশের রাইড শেয়ারিং পাঠাও-এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ। কিন্তু তাকে হত্যার ঘটনায় সব জায়গায় বেদনায় ভরে গেছে। বিশেষ করে বাংলাদেশ, নাইজেরিয়া ও কলম্বিয়ায় তা খুব বেশি। এসব দেশে তার বিনিয়োগ দেখিয়েছে উদ্ভাবনী পথ। সৃষ্টি হয়েছে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান। কিন্তু নিউ ইয়র্কে নিজের বিলাসবহুল এপার্টমেন্টে তাকে হত্যা করেছে তারই সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী টাইরেস হ্যাসপিল। ফাহিম সালেহ নাইজেরিয়াতে রাইড শেয়ারিং গোকাদা’র নির্বাহী। এ ছাড়া চমৎকার একজন উদ্যমী ব্যক্তি ছিলেন তিনি।

তিনি ও তার খুনি দু’জনেই মেধাবী। দু’জনেই অল্প বয়সে মেধার পরিচয় দিয়েছেন। তাদের ভিতরে থাকা উদ্যোক্তা শক্তির প্রকাশ ঘটিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী পত্রিকা ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত ‘এ ইয়াং সিইও, অ্যান এক্স-এসিসট্যান্ট এন্ড এ গ্রিসলি মার্ডার’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে মানবতাবাদী ফাহিম সালেহকে তুলে ধরা হয়েছে। বলা হয়েছে, ২০১৪ সালের টগবগে এক গ্রীষ্মের দিকে ঢাকায় একটি অফিসের জন্য স্থান খুঁজছিলেন ফাহিম সালেহ। এ সময় রাস্তার একটি তৃষ্ণার্ত শিশু তার দিকে এগিয়ে যায়। এতে সালেহ এতটাই আবেগতাড়িত হয়েছিলেন যে, তিনি যত বোতল সম্ভব পানি কিনে তাতে সোডা মিশ্রতি করে বিলি করেছেন রাস্তায় মানুষের মাঝে। এই বৈশ্বিক উদ্যোক্তা ও যৌথ বাণিজ্যের তরুণ এতটাই উদার ছিলেন বলে তার বন্ধু ও সহকর্মীরা বলছেন। তিনি তরুণকে কাজের সুযোগ দিতেন। মেধার স্বাক্ষর রাখতে পারেননি এমন তরুণদের পথ দেখিয়েছেন। নাইজেরিয়া ও কলম্বিয়ার মতো দেশের উদীয়মান বাজারে তাদেরকে পথ দেখিয়েছেন তিনি। নিউ ইয়র্ক সিটিতে তার এক বন্ধু শাকিব জামাল বলেছেন, মানুষকে সাহায্য করে, তাদেরকে বিস্মিত করে দিয়ে অসীম আনন্দ পেতেন ফাহিম সালেহ। এ মাসের শুরুর দিকে নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটানে নিজের এপার্টমেন্টে ৩৩ বছর বয়সী ফাহিম সালেহকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে তারই সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী টাইরেস হ্যাসপিল। ফাহিম সালেহ নাইজেরিয়ায় রাইড শেয়ারিং গোকাদা’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। তাকে হত্যার জন্য হ্যাসপিলকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের গোয়েন্দারা বলেছেন, ফাহিম সালেহর ব্যাংক একাউন্ট থেকে প্রায় ৯০ হাজার ডলার আত্মসাৎ করেছে হ্যাসপিল। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করেই ফাহিম সালেহকে হত্যা করা হয়েছে। ফাহিম সালেহ আত্মসাতের ঘটনা ধরতে পারায় তিনি হ্যাসপিলকে পুলিশে না দিয়ে, তাকে অর্থ পরিশোধের সুযোগ দিয়েছিলেন। এই মানবতা দেখানোর কারণে ফাহিম সালেহকে হত্যা করেছে হ্যাসপিল।

ওদিকে গত সপ্তাহে হ্যাসপিলের আইনজীবীরা তাদের মক্কেলকে নির্দোষ দাবি করেছেন। তারা বলেছেন, পুলিশ যে কথা বলে তাকে গ্রেপ্তার করেছে, তার বিরুদ্ধে ডিস্ট্রিক্ট এটর্নি যে অভিযোগ গঠন করেছে সেখানে আরো অনেক কিছু বলার আছে। এ বিষয়ে ফাহিম সালেহর পরিবার মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। গোকাদা’র এক মুখপাত্র বলেছেন, গোকাদা’র কোনো কর্মচারী বা এর সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত ছিলেন না হ্যাসপিল। এখনো ফাহিম সালেহ ও তার খুনি হ্যাসপিলের বন্ধুরা তাদের মধ্যকার সম্পর্ক কি ছিল তা বোঝার চেষ্টা করছেন। ফাহিম সালেহর কিছু বন্ধু ও কানেক সহকর্মী বলেছেন, হত্যাকাণ্ডের আগে কখনো তারা হ্যাসপিলের নাম শোনেননি। আবার হ্যাসপিল সম্পর্কে যারা অবগত তারা তাকে সালেহর জীবনে একজন ‘পেরিফেরাল পারসন’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তবে একটি বিষয় খুব স্পষ্ট। ফাহিম সালেহ ও টাইরেস হ্যাসপিল দু’জনেই ভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে এসেছেন। কিন্তু দু’জনেই অল্প বয়সে মেধা প্রদর্শন করেছেন। উদ্যোক্তা শক্তি প্রদর্শন করেছেন। ফাহিম সালেহর জন্ম সৌদি আরবে। তার পিতামাতা বাংলাদেশি। কিন্তু তিনি বড় হয়েছেন নিউ ইয়র্কের পোকিপসি এলাকায়। যখন তিনি হাইস্কুলে পড়াশোনা করেন এবং বেন্টলি ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার সায়েন্স ডিগ্রি নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন, তখনই তিনি ওয়েবসাইট বানিয়ে তা বিক্রি করে হাজার হাজার ডলার কামিয়েছেন। তার বড় সফলতার প্রথমটি হলো প্রাঙ্কডায়াল ডট কম। এটি টেলিফোন প্রাঙ্ককলিং সার্ভিস। কয়েক বছর আগে একটি লেখায় ফাহিম সালেহ বলেছিলেন এ থেকে তিনি এক কোটি ডলার আয় করেছেন। ওয়েব ডিজাইন দক্ষতা ব্যবহার করে তিনি ফিউচার বিজনেস লিডারস অব আমেরিকা প্রতিযোগিতায় প্রথম হন।