রায়হান কবিরের ওপর নিপীড়নের প্রতিবাদ করেছে বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা

বাংলাদেশ মেইল :: 

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের অভিবাসী রায়হান কবিরের ওপর নিপীড়নের প্রতিবাদ করেছে বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা । বাংলাদেশের ঊনত্রিশটি মানবাধিকার সংগঠন ও বিশ্বের অন্য মানবাধিকার সংগঠনগুলোর সঙ্গে গলা মিলিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারতের এসোসিয়েশন অফ প্রটেকশন অফ ডেমোক্র্যাটিক রাইটস।

সংগঠনের নেতা অসীম গিরি বলেন, বিশ্বে মানুষ প্রতিবাদ করার অধিকার হারাচ্ছে। প্রতিবাদ করলেই শাসকের রক্তচক্ষু। এ চলতে পারে না। গণতন্ত্রের টুঁটি চেপে ধরার অধিকার কারও নেই। অসীম বাবু জানান, করোনার কারণে তাঁরা সমাবেশ করতে পারছেন না কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ করছেন ঝড় তুলে দিয়ে। কিন্তু কি হয়েছিল রায়হান কবিরের? রায়হান মালয়েশিয়ায় কাজ করা বাংলাদেশের এক অভিবাসী কর্মী।

মালয়েশিয়ার করোনা নিয়ে আল জাজিরা টিভির একটি তথ্যচিত্রে অংশ নিয়ে কবির মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের ওপর অত্যাচারের কাহিনী তুলে ধরেন। এরপরই চব্বিশ জুলাই তাঁকে গ্রেপ্তার করে চৌদ্দ দিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠানো হয়। মালয়েশিয়ার অভিবাসন দপ্তরের প্রধান বলেছেন, রায়হানকে বাংলাদেশে ডিপোর্ট করা হবে এবং তাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে যাতে তিনি কোনোদিনই আর মালয়েশিয়ায় আসতে না পারেন। আল জাজিরা টিভির বিরুদ্ধেও রাষ্ট্রদ্রোহিতা, মানহানির মামলা আনা হয়েছে। আমেরিকার হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এশিয়া প্রধান বলেছেন, এই অন্যায় মেনে নেয়া যায় না। বাংলাদেশের অভিবাসী কর্মী রায়হান কবির এখন আন্তর্জাতিক আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে।