ফিরছেন করোনাজয়ী তমা

বাংলাদেশ মেইল ::

নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রায় একমাসের বেশি সময় ধরে বাড়িতে অবস্থান করেছেন চিত্রনায়িকা তমা মির্জা। আইসোলেশনে থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন তিনি। ৬ই আগস্ট এ অভিনেত্রীর কোভিড-১৯ পরীক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট আসে। সে সঙ্গে পরিবারের বাকি সদস্যরাও করোনামুক্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তমা। তিনি বলেন, সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা করোনামুক্ত হয়েছি। এখন আমরা ভালো আছি। সবাই দোয়া করবেন। এদিকে গত ৯ই জুলাই করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন তমা মির্জা।

একই সময়ে তার পরিবারের সদস্যরাও আক্রান্ত হন। এই একমাস চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবা নিয়ে সুস্থ হয়েছেন তারা। এক মাস পর করোনা থেকে মুক্ত হয়েই ক্যামেরার সামনে ফিরছেন তমা মির্জা। দেশটিভিতে প্রচার চলতি ‘প্রিয় তমার মুখ’ অনুষ্ঠান নিয়েই ছোট পর্দার দর্শকদের সামনে হাজির হচ্ছেন এই অভিনেত্রী। তিনি জানান, এ অনুষ্ঠানটি আগে থেকেই উপস্থাপনা করছি। এবারের অতিথি চিত্রনায়ক রিয়াজ। ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবসকে কেন্দ্র করে নির্মাণ করা হচ্ছে অনুষ্ঠানটি। এদিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় অনুষ্ঠানটি দেশটিভিতে প্রচার হবে। তমা বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনেই এখন আমাদের চলতে হবে। কাজও করতে হবে। তারই ধারাবাহিকতায় এ অনুষ্ঠানটি করছি। যদি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলচ্চিত্রের শুটিং শুরু হয় তবে করবো আশা রাখি। উল্লেখ্য, এম বি মানিকের পরিচালনায় ‘বলো না তুমি আমার’ ছবির মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন তমা মির্জা। এরপর শাহীন সুমনের ‘মনে বড় কষ্ট’, অনন্ত হীরার ‘ও আমার  দেশের মাটি’, শাহাদাৎ হোসেন লিটনের ‘অহংকার’,  দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘চল পালাই’, রয়েল খানের ‘গেইম রিটার্নস’ ও মারিয়া তুষারের ‘গ্রাস’ ছবিতে অভিনয় করেন তমা। ক্যারিয়ারে স্বীকৃতিস্বরূপ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও রয়েছে তার ঝুলিতে। শাহনাজ কাকলীর পরিচালনায় ‘নদীজন’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব-অভিনেত্রীর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন এ চিত্রনায়িকা।