বৃটেনের ক্রয়ডনে কাউন্সিল লিডার নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশি বংশদ্ভূত প্রথম কোন নারী

বাংলাদেশ মেইল ::

বৃটেনের ক্রয়ডন কাউন্সিলে প্রথমবারের মতো লিডার নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশী বংশদ্ভূত  নারী কাউন্সিলার হামিদা আলী। তিনি বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাতে ক্রয়ডন কাউন্সিলের লিডার নির্বাচিত হন ।

এর আগে একই বারা কাউন্সিলে পুরুষ লিডার  ৩/৪ জন নির্বাচিত হলেও নারী এই প্রথম কেউ কাউন্সিল লিডার নির্বাচিত হলেন । বৃটেনের স্থানীয় সরকার কাঠামোতে  কাউন্সিল লিডারের  অনেক ক্ষমতা।

চলতি মাসে বাঙালী অধ্যুষিত  টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পিকার  নির্বাচিত হয়েছেন আহবাব হোসাইন নামের আরেক কাউন্সিলর ।

যুক্তরাজ্যে স্থানীয় সরকারের ভূমিকা অনেক। কাউন্সিল নামে পরিচিত স্থানীয় সরকার এর আওতাধীন এলাকার বাসিন্দাসের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, নিরাপত্তা, পরিচ্ছন্নতাসহ যাতবীয় সেবা প্রদানের কাজটি করে থাকে। আর কাউন্সিল পরিচালনা ও এর নীতিনির্ধারণ করেন নির্বাচিত কাউন্সিলররা।

বিলেতের বিভিন্ন প্রান্তের স্থানীয় সরকারে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কাউন্সিলরের সংখ্যা বছর বছর এতটাই বাড়ছে যে তা এখন আর আলাদা মনযোগ আকর্ষণের বিষয় নয়। তবে এই কাউন্সিলরদের কেউ কেউ যে স্থানীয় সরকারের শীর্ষপদে আসীন হচ্ছেন, তা সত্যিই চমকপ্রদ।
এর  আগেও বাংলাদেশি  বংশোদ্ভূত চারজন কাউন্সিলর চারটি কাউন্সিলে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হয়েছিলেন । পূর্ব লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পিকার হয়েছিলেন সাবিনা আক্তার। বৃহত্তর লন্ডনের আওতাধীন বার্কিং অ্যান্ড ডেগেনহাম কাউন্সিলের অ্যাসেম্বলি প্রধান (চেয়ার অব দ্য অ্যাসেম্বলি) নির্বাচিত হয়েছিলেন সৈয়দ ফিরোজ গণি। ২০১৮ সালে স্যান্ডওয়েল মেট্রোপলিটান বারা কাউন্সিলের মেয়রের দায়িত্ব পেয়েছিলেন আহামেদুল হক এবং সুইন্ডন বারা কাউন্সিলের ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত হন জুনাব আলী। তাঁরা চারজনই লেবারদলীয় কাউন্সিলর। যুক্তরাজ্যে দলীয় ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার নির্বাচন হয়।