যুব ক্রিকেট দলের তিনজন করোনায় আক্রান্ত, আইসোলেশনে ১৫ জন

বাংলাদেশ মেইল ::

অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্যাম্পে হানা দিয়েছে করোনা। জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়েছেন ক্রিকেটার, কোচ, ম্যানেজারসহ অন্তত ১৫ জন। তিনজনের কোভিড-১৯ টেস্টের ফল পজেটিভ এসেছে। এরই মধ্যে ক্যাম্প স্থগিত করে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

করোনা উপসর্গ আছে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের প্রধান কোচ নাভিদ নেওয়াজেরও। ঢাকায় তার জন্য নির্ধারিত বাসায় আইসোলেশনে আছেন বিশ্বকাপজয়ী এই কোচ। বাকিদেরকে মিরপুরের সুইমিং কমপ্লেক্সে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। বিসিবি’র গেম ডেভেলপমেন্টের ম্যানেজার আবু ইমাম মোহাম্মদ কায়সার এ প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘মেডিকেল কমিটি আমাদের এমনই জানিয়েছে। কয়েকজনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার মতো অবস্থাই ছিল। পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পর দেখা গেছে, তারা তিনজন করোনায় আক্রান্ত।

কোন তিনজন সেটা বলছি না আমরা। এদের সংস্পর্শে যাওয়ায় বাকিদের আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে।’

বেশি মানুষকে আইসোলেশনে পাঠানোর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে আবু ইমাম মোহাম্মদ কায়সার বলেন, ‘কয়েকজনের শরীরে উপসর্গ ছিল। তাদের সংস্পর্শে যারা গিয়েছে, তাদেরকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। একজনের যদি উপসর্গ থাকে, তার রুমমেট, তার সাথে নেটে অনুশীলন করা বা তার সাথে মেশা সবাইকে আইসোলেশনে নেওয়া উচিত। এভাবে দুইজনের কারণেও ৮-১০ জনকে আইসোলেশনে নেয়া লাগতে পারে। এটা সতর্কতার অংশ, এটা আমাদের প্রটোকল।’

আগামী নভেম্বরে আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ। টুর্নামেন্ট সামনে রেখে ২৮ জন ক্রিকেটারকে নিয়ে গত ১লা অক্টোবর বিকেএসপিতে শুরু হয় যুব দলের ক্যাম্প। কিন্তু টুর্নামেন্ট পিছিয়ে যাওয়া ও করোনার হানায় টাইগার যুবাদের প্রস্তুতি স্থগিত করেছে বিসিবি। মোহাম্মদ কায়সার বলেন, ‘এশিয়া কাপ পিছিয়ে যাওয়ার কারণেই মূলত ক্যাম্প স্থগিত করা হয়েছে। এশিয়া কাপটা হলে আমরা ক্যাম্প চালিয়ে নেয়ার চ্যালেঞ্জ নিতাম। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ১০ই নভেম্বর শুরু হতে পারে যুবাদের ক্যাম্প।’